• রবিবার (সকাল ৭:৩৮)
    • ২৭শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ

বিসিবি’র পরিচালক লোকমান অভিযুক্ত হবার পরেও কিভাবে স্বপদে বহাল—সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের

ক্রাইম ডায়রি ডেস্কঃঃ

বঙ্গকন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরাসরি তত্বাবধানে শুদ্ধি অভিযানে ছাড় পাচ্ছেন না দলমত নির্বিশেষে সকলেই। ঠিক সেই সময়েই প্রমাণিত অভিযোগ নিয়ে স্বপদে বহাল আছেন দেশের অন্যতম প্রতিষ্ঠান বিসিবি’র  পরিচালক লোকমান।  অভিযোগ পেয়েও তার বিরুদ্ধে কেন ব্যবস্থা নেয়া হয়নি,তা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেছেন,লোকমানের বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণিত হয়েছে। ‘সে এখনো বিসিবির পরিচালক থাকে কী করে? অভিযোগ আসার পরেই তো তার ওই পদে থাকা উচিত না। আমি বিসিবি সভাপতির সাথে এ বিষয়ে কথা বলবো এবং তাকে জিজ্ঞাসা করবো লোকমানের বিরুদ্ধে কী ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে।

আজ সোমবার (২৮ অক্টোবর) সচিবালয়ে সেতু মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন।

অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগে আটক বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) পরিচালক ও মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাবের ভারপ্রাপ্ত পরিচালক লোকমান হোসেন ভূঁইয়াকে রাজধানীর তেজগাঁওয়ের মনিপুরীপাড়ার বাসা থেকে গ্রেফতার করা হয় গত ২৫ অক্টোবর। র‍্যাবের অভিযোগ, মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাবে বসানো ক্যাসিনো থেকে প্রতিদিন ৭০ হাজার টাকা করে নিতেন ক্লাবটির ডিরেক্টর ইনচার্জ লোকমান হোসেন ভূঁইয়া। তার বিরুদ্ধে বিদেশে অর্থপাচারসহ নানা অভিযোগ রয়েছে।

ক্রাইম ডায়রি//ক্রাইম//খেলাধুলা//আইন শৃঙ্খলা

Total Page Visits: 66751

কক্সবাজারে ঘুষের টাকাসহ ভূমি অফিসের ভারপ্রাপ্ত কানুনগো গ্রেফতার

কক্সবাজার সংবাদদাতাঃ

সারাদেশে ধারাবাহিক অভিযানের অংশ হিসেবে      ভূমিহীন ও প্রতিবন্ধী এক যুবকের নিকট থেকে ২০ হাজার টাকা ঘুষ গ্রহণের অভিযোগে মহেশখালী উপজেলা (কক্সবাজার) ভূমি অফিসের ভারপ্রাপ্ত কানুনগো আব্দুর রহমানকে হাতে-নাতে গ্রেফতার করেছে দুদক।

২৮অক্টোবর বিকাল ৪ টায় দুদক সমন্বিত জেলা কার্যালয় চট্টগ্রাম-২ এর উপপরিচালক মাহবুবুল আলম-এর নেতৃত্বে ছয় সদস্যের একটি টিম কক্সবাজার জেলার মহেশখালী উপজেলা ভূমি অফিস থেকে নিজ দপ্তরে বসে ঘুষ গ্রহণকালে ঘুষের টাকাসহ ঐ ভূমি অফিসের ভারপ্রাপ্ত কানুনগো আব্দুর রহমানকে গ্রেফতার করে।

স্থানীয় জনৈক ভূমিহীন ও প্রতিবন্ধী ব্যক্তি অভিযোগ করেন, মহেশখালী উপজেলার শাপলাপুর মৌজায় নিজের ভূমিহীন বাবা ও মায়ের নামে ভূমিহীন হিসেবে পাওয়া বন্দোবস্তি প্রাপ্ত জমির নামজারি প্রতিবেদনের জন্য আব্দুর রহমান তার কাছে ২০ হাজার টাকা ঘুষ দাবি করেন। প্রতিবন্ধী এই যুবকের কোনো অনুরোধেই মন গলেনি আব্দুর রহমানের। ঘুষের টাকা না দিলে, প্রতিবেদন দিবেন না বলে সাফ জানিয়ে দেন।
বিষয়টি ঐ প্রতিবন্ধী যুবক লিখিতভাবে দুদক-কে অবহিত করলে-কমিশন অভিযোগসংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাকে ফাঁদ মামলা পরিচালনা করে ঘুষ গ্রহণকালে হাতে-নাতে গ্রেফতারের অনুমতি দেয়।

আজ ঘুষ গ্রহণের নির্ধারিত সময়ের অনেক আগ থেকেই দুদক টিমের সদস্যরা মহেশখালী উপজেলা ভূমি অফিসের চারিদিকে ওত পেতে থাকেন । মহেশখালী উপজেলা (কক্সবাজার) ভূমি অফিসের ভারপ্রাপ্ত কানুনগো আব্দুর রহমান যখন আজ বেলঅ ৪ টায় নিজ দপ্তরে বসে ঘুষের ২০ হাজার টাকা গ্রহণ করছিলেন, ঠিক তখনই দুদক টিমের সদস্যরা তাকে ঘুষের টাকাসহ হাতে-নাতে গ্রেফতার করে। এসময় তার ব্যবহার্য ব্যাগ, ড্রয়ার তল্লাশি করে আরো নগদ প্রায় ১ লক্ষ ৯০ হাজার টাকা উদ্ধার করে দুদক টিম। আসামি এসব টাকারও কোনো বৈধ উৎস জানাতে পারেননি। এসব টাকাও আজকেরই ঘুষের টাকা বলেই সাক্ষ্য পাওয়া যাচ্ছে। এ বিষয়ে দুদক সজেকা চট্টগ্রাম-২ এর সহকারী পরিচালক মোঃ হুমায়ুন কবীর বাদী হয়ে দুদক সজেকা চট্টগ্রাম-২-এ একটি মামলা দায়ের করেছেন। এ অভিযানের নেতৃত্ব দিয়েছেন দুদকের সমন্বিত জেলা কার্যালয় চট্টগ্রাম-২ এর উপপরিচালক মুহম্মাদ মাহবুবুল আলম।

ক্রাইম ডায়রি/ক্রাইম   /// দুদক বিট

Total Page Visits: 66751

শুল্ক মামলায় সাজাপ্রাপ্ত বিএনপি’র এমপি হারুনের জামিন মঞ্জুর করেছে হাইকোর্ট

আদালত প্রতিবেদকঃ

দুদকের দায়ের করা শুল্ক ফাঁকির মামলায় পাঁচ বছরের কারাদণ্ডের বিরুদ্ধে হাইকোর্টে আপিল করেছিলেন  বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব  ও  চাঁপাইনবাবগঞ্জ-৩ আসনের এমপি হারুন একাদশ জাতীয় সংসদে বিএনপির সংসদীয় দলের নেতা হারুন অর রশীদ এমপি। শুল্কমুক্ত সুবিধায় গাড়ি আমদানি করার পর তা বিক্রি করে টাকা আত্মসাতের অভিযোগে তাকে ৫ বছরের সাজা দিয়েছিল নিম্ন আদালত। এই রায়ের বিপক্ষে উচ্চ আদালতে আপিল করেন এমপি হারুন। ২৮ অক্টোবর,সোমবার দুপুরে আপিলের শুনানি শেষে বিচারপতি মো. শওকত হোসেনের বেঞ্চ তাকে ৬ মাসের জামিন দেন।

আগে সোমবার সকালে দুদকের আইনজীবী খুরশীদ আলম খান জানান, এমপি হারুন তার দণ্ডের বিরুদ্ধে আপিল করেছেন। পাশাপাশি জামিনও চেয়েছেন তিনি। উল্লেখ্য, বিগত ২১ অক্টোবর ঢাকার বিশেষ জজ আদালত-৪ এর বিচারক শেখ নাজমুল আলম এমপি হারুনকে ৫ বছরের দণ্ড দেন। রায়ে এমপি হারুনকে পাঁচ বছর সশ্রম কারাদণ্ড ও ৫০ লাখ টাকা অর্থদণ্ড দেয়া হয়েছে। অর্থদণ্ড অনাদায়ে আরও ছয় মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে। ওইদিনই তাকে গ্রেফতার করে কারাগারে পাঠানো হয়।

এই মামলায় পলাতক আসামি চ্যানেল নাইনের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. এনায়েতুর রহমান বাপ্পিকে দুই বছর সশ্রম কারাদণ্ড ও এক লাখ টাকা অর্থদণ্ড দেয়া হয়েছে। অর্থদণ্ড অনাদায়ে আরও দুই মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দেয়া হয়। সেই সাথে  অপর পলাতক আসামি গাড়ি ব্যবসায়ী স্কাই অটোসের মালিক ইশতিয়াক সাদেককে তিন বছর সশ্রম কারাদণ্ড ও ৪০ লাখ টাকা অর্থদণ্ড দেয়া হয়। অর্থদণ্ড অনাদায়ে আরও ছয় মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ডের আদেশ দেন আদালত।

শুল্কমুক্ত গাড়ি আমদানি করে শর্তভঙ্গ করে তা বিক্রি করায় সরকারের ৮৭ লাখ ৭১ হাজার ৬১২ টাকার শুল্ক বাবদ আর্থিক ক্ষতি হয়েছে। এ ঘটনায় ২০০৭ সালের ১৭ মার্চ এসআই মো. ইউনুচ আলী বাদী হয়ে রাজধানীর পল্লবী থানায় মামলা করেন।আদালত সূত্রে  জানা গেছে , ২০০৫ সালের ১৯ এপ্রিল হারুন অর রশীদ এমপি কোটায় শুল্কমুক্ত গাড়ি আমদানি করেন। এর এক সপ্তাহ পরই শুল্কমুক্ত গাড়িটি তিনি বিক্রি করে দেন। গাড়িটি তিনি স্কাই অটোসের মালিক ইশতিয়াক সাদেকের মাধ্যমে ক্রেতা মো. এনায়েতুর রহমানের কাছে বিক্রি করেন। গাড়িটির ইনভয়েস মূল্য ১১ লাখ ৬৪ হাজার ১১০ টাকা। দুদকের সহকারী পরিচালক মো. মোনায়েম হোসেন আসামিদের বিরুদ্ধে আদালতে  চার্জশিট (অভিযোগপত্র) দাখিল করলে আদালত আসামিদের বিরুদ্ধে চার্জ (অভিযোগ) গঠনের মাধ্যমে মামলার আনুষ্ঠানিক বিচার শুরু করেন।

ক্রাইম ডায়রি// আদালত///রাজনীতি

 

Total Page Visits: 66751