• শনিবার ( সকাল ৬:২৩ )
    • ১৯শে অক্টোবর, ২০১৯ ইং

চিনি, বার্নিশ কালার, ময়দা, রং দিয়ে তৈরি আখেরগুড় জব্দ ও জরিমানা

রাজবাড়ী সংবাদদাতাঃ

ভেজালের মহোৎসব চলছে। গুড়ে ভেজাল বলতে আমরা বুঝতাম   হাইড্রোস। কিন্তুু এমন ভেজাল শুনে সত্যিসত্যিই আতংকিত হওয়া স্বাভাবিক।

রাজবাড়ীর পাংশা উপজেলায় ভেজাল গুড়ের কারখানায় অভিযান চালিয়ে ২৫০ মণ ভেজাল গুড় জব্দ করার পাশাপাশি তাপস পাল নামে এক ব্যবসায়ীকে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে।
চক পাউডার, ফিটকিরি, চিনি, বার্নিশ কালার, ময়দা, রং দিয়ে তৈরি করা হতো ওইসব আখের গুড়।বৃহস্পতিবার (০৯ মে) দুপুরে ভোক্তা আইনের ৪২ ধারায় ওই ভেজাল গুড় ব্যবসায়ীকে জরিমানা এবং গুড় তৈরির মালামাল ধ্বংস করেছে জেলা জাতীয় ভোক্তা অধিকার। এ সময় জব্দকৃত ৫ বস্তা চিনি ও ৪ কুলা গুড় স্থানীয় একটি এতিমখানায় বিতরণ করা হয়েছে।

জানা গেছে, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে জেলা জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক মোঃ শরিফুল ইসলাম এর নেতৃত্বে পাংশা থানার ওসি আহসান উল্লাহ, সিভিল সার্জন কার্যালয়ের স্যানিটারি ইন্সেপেক্টর ও নিরাপদ খাদ্য পরিদর্শক সূর্য্যে কুমার প্রামাণিকসহ প্রশাসনের সহায়তায় পাংশা উপজেলার মৈশালা তাপস পালের ভেজাল গুড়ের কারখানায় অভিযান চালিয়ে প্রায় ২৫০ মন ভেজাল গুড়, গুড় তৈরির চক পাউডার, ফিটকিরি, চিনি, বার্নিশ কালার, ময়দা, গুলানো রং জব্দ করে জেলা জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর। পরে জব্দকৃত ভেজাল গুড় ও গুড় তৈরির মালামাল সাধারণ জনগণের সামনে ধ্বংস এবং গুড় ব্যবসায়ী তাপস পালকে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করেন ও মুচলেকা নেন।

ক্রাইম ডায়রি// ক্রাইম

Total Page Visits: 16655

লক্ষীপুরে RAB এর হাতে চাঞ্চল্যকর তাহমিনা হত্যার এজাহারভুক্ত আসামী গ্রেফতার

লক্ষীপুর সংবাদদাতাঃ

লক্ষ্মীপুরে RAB এর অভিযানে বেগমগঞ্জ থানার চাঞ্চল্যকর তাহমিনা আক্তার (25) গণধর্ষণ মামলার এজাহারভূক্ত প্রধান আসামীসহ তিনজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

RAB সুুুুত্রে  জাানা গেছে,  ২৪ মে ২০১৯ তারিখে  গোপন সংবাদের ভিত্তিতে  নোয়াখালী জেলা বেগমগঞ্জ থানাধীন হিরাপুর এলাকা থেকে চাঞ্চল্যকর তাহমিনা আক্তার গণধর্ষণ মামলার প্রধান আসামী মোঃ হারুন (৪৫)সহ তার দুই সহযোগীদের গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-১১, লক্ষ্মীপুর ক্যাম্প।মামলাটির বাদী তাহমিনা আক্তার এর অভিযোগের ভিত্তিতে পুলিশ সুপার জনাব নরেশ চাকমা এর নেতৃত্বে একটি বিশেষ অভিযান পরিচালনা করা করে বেগমগঞ্জ থানাধীন হিরাপুর প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভবন থেকে গণধর্ষণ মামলার প্রধান আসামী মোঃ হারুন (৪৫), পিতাঃ চৌধুরী আলম, সাং-আমানউল্ল্যাহপুর ও তার অপর দুই সহযোগী হলোঃ—-১। পেয়ার আহম্মেদ রাসেল (২৩), পিতাঃ সিরাজ মিয়া, সাং-আমানউল্ল্যাহপুর, ২। শামসুল আলম রাসেল (২৩), পিতাঃ কামাল হোসেন, সাং-ছোট সোনাইমুড়ি, উভয় থানা- বেগমগঞ্জ, জেলা-নোয়াখালীদের গ্রেফতার করে হেফাজতে নেয়।গ্রেফতারকৃত আসামীদের সাধারণ ডায়েরীমূলে বেগমগঞ্জ মডেল থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে। উল্লেখ্য যে, গত ২৪ তারিখ তাহমিনা আক্তার বেগমগঞ্জ থানায় বাদী হয়ে একটি গণধর্ষণ মামলা দায়ের করেন।

ক্রাইম ডায়রি///  আইন শৃঙ্খলা

Total Page Visits: 16655