• রবিবার (সকাল ৮:৪৪)
    • ২৭শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ

বিএসটিআই বগুড়ার অভিযানঃ অবৈধভাবে মানচিহ্ন ব্যবহার করায় জড়িমানা

শরীফা আক্তার স্বর্না,  উত্তরাঞ্চলীয় অফিসঃ

মানসনদ গ্রহন না করে পন্যের গায়ে মানচিহ্ন ব্যবহার করে সারাদেশেই চলছে দূর্নীতির মহোৎসব। সাম্প্রতিককালে মফস্বলে এ চিত্র আরও ভয়াবহ। কোন কোন জায়গায় সব মানচিহ্ন ব্যবহার করে মোড়কে কোম্পানির কোন ঠিকানা নির্দিষ্ট করে দেওয়া হচ্ছেনা। ঠিকানায় লেখা হচ্ছে চকবাজার ঢাকা কিংবা মোহাম্মদপুর ঢাকা কিংবা বগুড়া, বাংলাদেশ এমন। বিশেষ কিছু পন্যে এমন ব্যবহার করে বাজারজাতকরণে  আরও ভয়াবহ চিত্র লক্ষ্য করা যাচ্ছে। চাপাতা, জুস এবং মশার কয়েল এ তিনটি পন্যে এরকম নকলের প্রবণতা সবচেয়ে বেশি। ইদানিংকালে উত্তরবঙ্গের জেলাগুলোতে নকল পন্যের আনাগোনা বেশি চোখে পড়ছে। চায়ের দোকানগুলোতে মানসনদহীন চা পাতায় ভরপুর। দোকানগুলোতে জুস, মশার কয়েলে ভরপুর।

বিশেষ কিছু পন্যে এমন ব্যবহার করে বাজারজাতকরণে  আরও ভয়াবহ চিত্র লক্ষ্য করা যাচ্ছে। চাপাতা, জুস এবং মশার কয়েল এ তিনটি পন্যে এরকম নকলের প্রবণতা সবচেয়ে বেশি। ইদানিংকালে উত্তরবঙ্গের জেলাগুলোতে নকল পন্যের আনাগোনা বেশি চোখে পড়ছে।

বি এসটিআইয়ের   দক্ষ কর্মকর্তাদের কারনে তটস্থ থাকতে হয় নকলবাজদের। সম্প্রতি এমন অভিযোগের প্রেক্ষিতে বি এস টি আই বগুড়ার কর্মকর্তা প্রকৌশলী জুনায়েদ আহমেদ এর মাঠ পর্যায়ে অব্যহত অভিযানে ভেঙে গিয়েছে নকলবাজদের মেরুদণ্ড। স্বস্থি পেয়েছে জনগন। জুলাই ১৮,২০২০ইং বগুড়ায় অবৈধভাবে বিএসটিআই’র মানচিহ্ন ব্যবহার করায় ১,০০,০০০/- (এক লক্ষ টাকা) জরিমানা এবং ৪৩,০০০/- মূল্যের মালামাল ধ্বংস করা হয়েছে।

সরেজমিন সূত্রে জানা গেছে,  বগুড়া সদরে র‌্যাপিড এ্যাকশন ব্যাটেলিয়ান (র‌্যাব)-১২ এর সহযোগিতায় নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট এটিএম কামরুল ইসলামের নের্তৃত্বে একটি ভ্রাম্যমাণ আদালত হতে বিএসটিআই’র গুণগত মানসনদ গ্রহণ না করে অবৈধভাবে ‘ক্যান্ডি/লজেন্স, আইস ললি ও এডিবল জেল’ বিক্রয়-বিতরণ এবং মোড়কে বিএসটিআই’র লোগো সম্বলিত স্ট্যান্ডার্ড মার্ক ব্যবহার করায় গোকুল এলাকার মেসার্স পিএন্ডপি ফুডসকে ‘বাংলাদেশ স্ট্যান্ডার্ডস এন্ড টেস্টিং ইন্সটিটিউশন আইন-২০১৮’ এর ২৭ ধারা মোতাবেক ১,০০,০০০/- (এক লক্ষ টাকা) জরিমানা করা হয়।  এসময় সেখান হতে ৪৩,০০০/- মূল্যের অবৈধ মালামাল জব্দ করা হয়। পরে জব্দকৃত মালামাল আগুনে পুড়িয়ে ধ্বংস করা হয়। মামলাটির প্রসিকিউশন দেন বিএসটিআই জেলা অফিস, বগুড়া এর পরিদর্শনকারী কর্মকর্তা প্রকৌশলী জুনায়েদ আহমেদ।

এসময় অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন র‌্যাব-১২ এর ক্যাম্প কমান্ডার মোস্তাফিজুর রহমান ও স্যানিটারী ইন্সপেক্টর শাহ আলী।

বি এস টি আই সূত্র জানিয়েছে, জনস্বার্থে এমন অভিযান অব্যহত থাকবে।

ক্রাইম ডায়রি/// ক্রাইম// আদালত/ জেলা

Total Page Visits: 62 - Today Page Visits: 1

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Send this to a friend