• শনিবার ( সকাল ৬:২৭ )
    • ১৯শে অক্টোবর, ২০১৯ ইং

চোরের মায়ের বড় গলাঃশেরপুর হাসপাতালের ষ্টোর কিপার পলাতক!

বিশেষ প্রতিবেদনঃ

বেশ কিছুদিন হলোই বগুড়া জেলার শেরপুর থানার স্বাস্থ্যসেবা, ঔষধ ব্যবসা ও ভূয়া ডাক্তার নিয়ে আলোচনা চোখে পড়ার মত।  ইতোপূর্বে শহরের হাসপাতাল রোডের একটি ঔষধের দোকান হতে মূমুর্ষ রোগীর জন্য ঔষধ আনতে গেলে মেয়াদোত্তীর্ন ঔষধ ধরিয়ে দেয়া হয়। ক্রাইম ডায়রির অনলাইন দৈনিকে এ বিষয়ে সংবাদ পরিবেশিতও হয়েছিল।

শেরপুরের বহুল পরিচিত ও প্রচারিত পত্রিকা আজকের শেরপুর এ  উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের   নানা অনিয়মের বিরুদ্ধে নিউজ প্রকাশিত হয়।        অনিয়ম ও দুর্নীতির খবর প্রকাশ করায় বড় বড় কথা বলেছেন হাসপাতালের প্রধান কর্মকর্তা। কিন্তু সাধারণ মানুষের স্বাস্থ্যসেবা নিয়ে নিজেরা কতটা দুর্নীতির অন্ধকারে নিমজ্জিত তা কখনও ভেবে দেখেননি। এবার সত্যি সত্যিই বেরিয়ে আসছে থলের বিড়াল। বগুড়ায় কোটি টাকার সরকারি ওষুধ উদ্ধারের ঘটনায় পুলিশী তদন্তে বেরিয়ে এসেছে শেরপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এর ষ্টোর কিপার বিরাজ উদ্দিন মন্ডলের নাম। তিনি বগুড়া থেকে শেরপুর হাসপাতালে ওষুধ পৌছানোর পুর্বেই তা কালোবাজারে বিক্রি করে দিতেন। বগুড়া সদর থানার পুলিশ সাধারণ মানুষকে বিনামুল্যে দেবার জন্য সরকারের দেয়া ওষুধ কালোবাজারে বিক্রির সাথে তার সম্পৃক্ততা নিশ্চিত হয়েছে। আর বিরাজ উদ্দিন মন্ডল গত ২২ জুন থেকে চার দিনের ছুটি নিয়ে আর কাজে যোগদান করেননি। তিনি এখন পলাতক রয়েছেন।

জনমনে প্রশ্ন হাসপাতালের ষ্টোর কিপার কি একাই সরকারি ওষুধ কালোবাজারে বিক্রি করতে পারেন? এর সাথে কি রাঘববোয়াল আর কেউ জড়িত নেই?যে হাসপাতালের ষ্টোর কিপার কোটি টাকার সরকারী ঔষধ চুরির সাথে জড়িত সেই হাসপাতালে দায়িত্বপ্রাপ্ত উপজেলা স্বাস্থ্য ও প.প কর্মকর্তা ডা. আব্দুল কাদের এর বড় বড় নীতিবাক্য চোরের মায়ের বড় গলা নয় কি? জনগনের সাথে এমন প্রতারণার দায় কার?

ক্রাইম ডায়রি// ক্রাইম//স্বাস্থ্য//জেলা/সাইফুল বারী

Total Page Visits: 16655

বঙ্গকন্যার কড়া নির্দেশঃ বরগুনা ট্রাজেডি’র খুনিদের যে কোন মূল্যে গ্রেফতার

বরগুনা সংবাদদাতাঃ

যে কোন অপরাধীই গুরুতর অপরাধ করলে কোন ছাড় নয় নীতিতে বিশ্বাসী বঙ্গবন্ধুর   সোনার বাংলায় বঙ্গকন্যাও বরগুনায় প্রকাশ্য দিবালোকে স্ত্রী’র সামনে কুপিয়ে হত্যাকারীদের যে কোন মূল্যে গ্রেফতার করতে আদেশ দিয়েছেন।

বরগুনায় পথচারীদের উপস্থিতিতে স্ত্রীর সামনে রিফাত শরীফ (২৩) নামে এক যুবককে কুপিয়ে হত্যার ঘটনায় হতবাক বিশ্ব মানবতা। নির্বাক হয়ে গেছে  পুরো দেশবাসী।

এহেন অবস্থায় জড়িতদের যেকোনো মূল্যে গ্রেপ্তার করতে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীকে নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। বৃহস্পতিবার দুপুরে সচিবালয়ে সাংবাদিকদের এ কথা জানান সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

এসময় ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘বরগুনার ঘটনা খুবই বর্বরোচিত ও দুঃখজনক। যেকোনো মূল্যে এ ঘটনায় জড়িতদের গ্রেফতার করতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীকে নির্দেশ দিয়েছেন।
এর আগে বুধবার সকালে বরগুনা সরকারি কলেজের সামনে ঐ হামলার ঘটনা ঘটে। নিহত রিফাত সদর উপজেলার বুড়িরচর ইউনিয়নের বড় লবণগোলা গ্রামের দুলাল শরীফের ছেলে।

এদিকে প্রকাশ্যে রিফাতকে কুপিয়ে হত্যার স্থিরচিত্র ও ভিডিওচিত্র সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে।

ভিডিও চিত্রে দেখা যায়, দুই যুবক রাম দা দিয়ে কোপাচ্ছে রিফাতকে। এ সময় তার স্ত্রী আয়শা আক্তার মিন্নি ওই দুই যুবককে বারবার প্রতিহত করার চেষ্টা করেও ব্যর্থ হন। এই ঘটনায় দেশব্যাপী তীব্র আলোড়ন সৃষ্টি হয়েছে; বইছে নিন্দার ঝড়।
এ ঘটনায় বুধবার রাতে নিহত রিফাতের বাবা দুলাল শরীফ বাদী হয়ে ১২ জনের বিরুদ্ধে একটি হত্যা মামলা করেছেন। এ মামলার ৪ নম্বর আসামি চন্দন।

নিহত রিফাতের বাবা দুলাল শরীফ জানান, তার ছেলে দুই মাস আগে আয়শা আক্তার মিন্নিকে বিয়ে করে। বিয়ের পর মিন্নিকে নিজের সাবেক স্ত্রী দাবি করে উত্ত্যক্ত করতে শুরু করে শহরের পশ্চিম কলেজ সড়কের নয়ন বন্ড নামে এক যুবক। সে ফেসবুকে বিভিন্ন আপত্তিকর ছবিও পোস্ট করে। এই নিয়ে রিফাতের সঙ্গে নয়নের বিরোধ সৃষ্টি হয়। এর জের ধরে বুধবার সকালে নয়ন, রিফাত ফরাজী, রিশান ফরাজী ও রাব্বি আকন রিফাতকে কুপিয়ে হত্যা করে বলে অভিযোগ করেন দুলাল শরীফ।

এদিকে রিফাতের স্ত্রী বলেছেন, পাশে দাঁড়িয়ে থাকা ছেলেগুলো সাধারণ দর্শক নয়, তারাই প্রথম রিফাত এবং তার স্বামীকে কলেজ থেকে বের হবার সময় আটকায়। মারধর করে। পরে ২ জন এসে রিফাতকে কোপাতে থাকে। সুতরাং, নিরব দর্শকদের শাস্তির আওতায় আনা প্রয়োজন বলে সুশীল সমাজের প্রতিনিধিরা মনে করেন।

ক্রাইম ডায়রি///ক্রাইম//জাতীয়

Total Page Visits: 16655