• রবিবার ( রাত ১০:১২ )
    • ১৮ই আগস্ট, ২০১৯ ইং

আশুলিয়ায় চাঁদা না দেয়ায় গণধর্ষণঃঃ আটক ০১

আশুলিয়া সংবাদদাতাঃঃ

কিছু ঘটনা মাঝেমাঝে মনে আমরা আইয়্যামে জাহেলিয়াতেেের  যুগকেও  ছাড়িয়ে গেছি।।। আর সমাজে প্রতিবাদীী ভালমানুষ যে কমে গিয়েছে এটাও তার প্রমান। সবকিছুর কেন্দ্র যেখানে সেই রাজধানীর একটু দুরে  নিরীহ ব্যক্তির কাছে চাঁদা দাবী করেছিল একদল বখাটে।। হ্যা, আশুলিয়ায় চাঁদার টাকা না পেয়ে স্বামী কে পাশের কক্ষে বেঁধে রেখে এক উপজাতি (মারমা) নারী কে গণধর্ষণ করেছে সেই  ৪ বখাটে। এ ঘটনায় একজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। ভুক্তভোগী ওই উপজাতি নারীকে স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠিয়েছে পুলিশ। ঘটনায় ভুক্তভোগি বাদি হয়ে আশুলিয়া থানায় একটি ধর্ষণ মামলা করেছে।

রোববার সকালে আশুলিয়া ডেন্ডাবর নতুনপাড়া এলাকা থেকে ধর্ষক রনি(২১) নামে এক আসামীকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। রোববার দুপুরে তাকে আদালতে পাঠানো হয়েছে।

ঘটনা সুত্রে জানা গেছে,   ভুক্তভোগী ওই উপজাতি নারীকে স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠিয়েছে পুলিশ। ঘটনায় ভুক্তভোগি বাদি হয়ে আশুলিয়া থানায় একটি ধর্ষণ মামলা করেছে।

গত ১৩ আগস্ট রাত ৮টায় আশুলিয়ার ডেন্ডাবর নতুনপাড়া এলাকার মঈন উদ্দিনের বাড়িতে এ ধর্ষণের ঘটনা ঘটে। ১৭ আগস্ট ওই ভুক্তভোগি নারী বাদী হয়ে আশুলিয়ায় থানায় ৪ জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন।

আসামীরা হলো- পাবনা জেলার আটঘরিয়া থানার পাইকপাড়া গ্রামের মন্টু মিয়ার ছেলে রনি(২১), আশুলিয়ার ডেন্ডাবর নতুনপাড়া এলাকার স্থায়ী নিবাসী খোরশেদ আলম খোকনের ছেলে জয়(২২), ফরিদপুর জেলার শামীম(২৬) ও ডেন্ডাবর নতুন পাড়া এলাকার কায়ুম মোল্লার ছেলে রাজু(২৬)। আসামী রনি এবং শামীম ডেন্ডাবর এলাকায় বাসা ভাড়া নিয়ে থাকত।

মামলার এজাহারে বাদি উল্লেখ করেন, মঙ্গলবার (১৩ আগস্ট) অবৈধভাবে মদ তৈরির অভিযোগ এনে উপজাতি দম্পতির ঘরে প্রবেশ করে ৪ বখাটে। তাদের কাছে ২ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করে তারা। এসময় বাসায় ভাংচুর চালায় বখাটেরা। চাঁদা দিতে অস্বীকৃতি জানালে ধর্ষিতার স্বামীকে মারধর করে। পরে স্বামীকে পাশের কক্ষে আটকে ও বেঁধে রেখে স্ত্রীকে পালাক্রমে ধর্ষণ করে ওই ৪ বখাটে। নারীর গলায় থাকা স্বর্ণের চেইন সহ নগদ প্রায় ১০ হাজার টাকা ছিনিয়ে নেয় তারা। চলে যাওয়ার সময় এ ঘটনা কাউকে জানালে প্রাণ নাশের হুমকিও দেয় তারা।

আশুলিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ রিজাউল হক দিপু  জানান, উপজাতি নারীকে গণধর্ষণের ঘটনায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। ইতোমধ্যে রনি নামে এক আসামীকে গ্রেফতার করা হয়েছে এবং আদালতে পাঠানো হয়েছে। বাকিদের গ্রেফতারের অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

ক্রাইম ডায়রি///ক্রাইম

5678total visits,129visits today

কুমিল্লায় অটোরিকশা- বাস মুখোমুখি সংঘর্ষঃ শিশুসহ নিহত ০৭

সাহিদুজ্জামান চৌধুরী,কুমিল্লা অফিসঃ

কুমিল্লায় বাস ও অটোরিকশার মধ্যে মুখোমুখি সংঘর্ষে সাতজন নিহত হয়েছেন।  ঢাকা থেকে লাকসামগামী বাস বর  লাকসাম থেকে কুমিল্লাগামী অটোরিকশার মধ্যে এ ঘটনা ঘটে। এতেে অটোোরিকশার ৭যাত্রীর সবাই নিহত হয়েছেন। নিহতদের মধ্যে তিনজন পুুুুরুষ, তিনজন নাারী ও একজন শিশুও রয়েছে।

এ ঘটনায় আহত হয়েছেন একজন। রবিবার দুপুর সোয়া ১২টার দিকে কুমিল্লা-নোয়াখালী আঞ্চলিক মহাসড়কে জেলার লালমাই উপজেলার জামতলী-বাগমারা নামক এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে।

লালমাই থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) বদরুল ইসলাম এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তবে প্রাথমিকভাবে হতাহতদের নাম-পরিচয় বিস্তারিত জানা যায়নি।

ক্রাইম ডায়রি//জেলা//চলতি পথে

5678total visits,129visits today

ঝালকাঠির নলছিটিতে তরুনীকে বাসা থেকে ডেকে নিয়ে ধর্ষণঃ সহযোগী আটক

ইমাম বিমান,ঝালকাঠি অফিসঃ
ঝালকাঠি জেলার নলছিটিতে এক তরুণীকে বাসা থেকে ডেকে নিয়ে ধর্ষণের অভিযোগে থানায় মামলা দায়ের হয়েছে। এ ঘটনায় সাগর সরদার নামে ধর্ষকের একসহযোগীকে গ্রেফতার করেছে নলছিটি থানা পুলিশ।
পুলিশ ও তরুণীর পরিবার সূত্রে জানায়, পূর্ব পরিচয়ের সূত্র ধরে সাগর সরদার ও রিয়াজ হাওলাদার নামে দুই যুবক বৃহস্পতিবার রাত ৮টার দিকে ওই তরুণীকে তার বাসার সামনে ডেকে আনে। পরে সেখান থেকে মেয়েটিকে ধরে নিয়ে একটি অটোরিকশায় উঠিয়ে পাশ্ববর্তী কাপড়কাঠী গ্রামের একটি জঙ্গলে নিয়ে যায়। সেখানে সাগরের সহযোগীতায় রিয়াজ ওই তরুণীকে ধর্ষণ করে। একপর্যায় তরুণীর চিৎকারে এলাকাবাসী ছুটে এলে ধর্ষক রিয়াজ পালিয়ে যায়। স্থানীয়রা তরণীকে উদ্ধার করে এবং ধর্ষকের সহযোগী সাগরকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করে।
পুলিশ ভিকটিমকে চিকিৎসা ও ডাক্তারী পরীক্ষার জন্য বরিশাল শের-ই বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠান। সেখানে চিকিৎসার জন্য তাকে ভর্তি করা হয়েছে।
এ ঘটনায় নলছিটি থানার ওসি সাখাওয়াত হোসেন সাংবাদিকদের জানান, কাপড়কাঠি গ্রামে এক তরুণীকে ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে বলে আমরা জানতে পারি। সেখান থেকে পুলিশ তরুনীকে  উদ্ধার করে হাসপাতালে প্রেরন করে। অপরদিকে ধর্ষনে সহযোগীকে আটক করা হয়। এ ঘটনায় ভিকটিম নিজেই বাদী হয়ে ধর্ষক ও তার সহযোগীর বিরুদ্ধে নলছিটি থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন।  ধর্ষকের এক সহযোগিকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। বাকি আসামিকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা করা হচ্ছে।
ক্রাইম ডায়রি//ক্রাইম//জেলা

5678total visits,129visits today

পাক-ভারত সীমান্তে গোলাগুলিঃ উভয় পক্ষের আট সেনা নিহত

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃঃ

চরম উত্তেজনার মধ্যে ভারত পাক সীমান্তের  পাকিস্তান অংশে  (লাইন অব কন্ট্রোল) গোলাগুলির ঘটনা ঘটেছে। এতে ভারতের পাঁচ ও পাকিস্তানের তিন সেনা সদস্য গুলিবিদ্ধ হয়ে   নিহত হয়েছেন। পাকিস্তানে আইএসপিআর মহাপরিচালক মেজর জেনারেল আসিফ গাফুরের বরাত দিয়ে  পাকিস্তানের গণমাধ্যম ডন  এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়েছে।বৃহস্পতিবার (১৫ আগস্ট) ভারতজুড়ে উদযাপিত হচ্ছে ৭৩তম স্বাধীনতা দিবস। এরই মধ্যে এ হতাহতের খবর এলো।টুইটবার্তায় গাফুর লিখেছেন, ‘জম্মু-কাশ্মীর ইস্যু আড়াল করতে ভারতীয় বাহিনী উসকানিমূলকভাবে পাকিস্তানের সশস্ত্র বাহিনীকে লক্ষ্য করে হামলা চালায়। এতে আমাদের তিন সেনা নিহত হয়েছেন। এ ঘটনার পাল্টা জবাব দিয়েছে পাকিস্তান। এতে ভারতের পাঁচ সেনা সদস্য নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন আরও অনেক। এ ছাড়া একাধিক বাঙ্কার ধ্বংস করে দেয়া হয়েছ।’ এ ঘটনার পর থেকে সীমান্তে থেমে থেমে গোলাগুলি চলছে বলে জানিয়েছেন তিনি।

পাকিস্তানের নিহত তিন সেনা সদস্যের পরিচয় প্রকাশ করেছে ডন। তারা হলেন নায়েক তানভির, ল্যান্স নায়েক তৈমুর ও সিপাহি রমজান।
আজ ১৫ আগস্ট ভারতজুড়ে উদযাপিত হচ্ছে স্বাধীনতা দিবস। অন্যদিকে সম্প্রতি ভারত জম্মু-কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা কেড়ে নেয়ায় এ দিনটিকে ‘কালো দিন’ হিসেবে পালন করছে পাকিস্তান।

এদিকে স্বাধীনতা দিবসের উৎসবে পাঁচ সেনা সদস্যের প্রাণহানির ঘটনা ভারতকে আরও উস্কিয়ে দিল পাকিস্তান। তাইতো শত্রু দেশ পাকিস্তানকে থামাতে এবার বিধ্বংসী পারমাণবিক অস্ত্রের কথা স্মরণ করিয়ে দিল নরেন্দ্র মোদি সরকার।

পাকিস্তানকে সতর্ক করে শুক্রবার দেশটির প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিং বলেন, ‘এখনও পর্যন্ত পরমাণু অস্ত্র নিয়ে প্রথম ব্যবহার নীতিতে চলে না ভারত। অর্থাৎ, তারা কখনও আগে পারমাণবিক অস্ত্রের ব্যবহার করবে না। তবে, পরিস্থিতি অনুযায়ী ভবিষ্যতে এই নীতিরও পরিবর্তন হতে পারে।’

আজ রাজস্থানের পোখরানে সেনা মহড়া অনুষ্ঠানের শেষ দিনে অংশ নেন প্রতিরক্ষামন্ত্রী। তিনি আরও বলেন, ‘কাকতালীয়ভাবে আজ প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী অটল বিহারী বাজপেয়ীর প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী। আর পোখরানের সঙ্গে অটল বিহারী বাজপেয়ীর স্মৃতি জড়িয়ে আছে। ভারতকে পরমাণু শক্তিধর রাষ্ট্র হিসেবে তুলে ধরতে অটল বিহারী বাজপেয়ীর যে অবদান রয়েছে তার সাক্ষী এই পোখরান।’

পোখরানে প্রয়াত প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী বাজপেয়ীর ছবিতে শ্রদ্ধা জানান রাজনাথ। এই পোখরানেই ১৯৭৪ এবং ১৯৯৮ সালে পরমাণু পরীক্ষা করা হয়।

ক্রাইম ডায়রি//আন্তর্জাতিক

5678total visits,129visits today

রাজধানীর মিরপুরে চলন্তিকার মোড়ে বস্তিতে আগুনঃ নিয়ন্ত্রণে ফায়ার সার্ভিসের ২০টি ইউনিট

আরিফুল ইসলাম কাইয়ুমঃ

রাজধানীর মিরপুর ৬ এ  রূপনগর থানাধীন চলন্তিকার মোড় সংলগ্ন একটি বস্তিতে সন্ধ্যায়  আগুন লাগার ঘটনা ঘটেছে। আগুন নিয়ন্ত্রণে কাজ করছে ফায়ার সার্ভিসের ২০টি ইউনিট।

সরেজমিনে  ক্রাইম ডায়রির স্থানীয় প্রতিনিধি সুত্রে জানা গেছে, শুক্রবার (১৬ আগস্ট) সন্ধ্যা ৭টার দিকে হঠাৎই জ্বলে ওঠে আগুন।পরে ধীরেধীরে  দাউ দাউ করে আগুন চারিদিকে ছড়িয়ে পড়ে  ।

তিনি জানান, আগুনের খবর পাওয়ার পরই মোট ১২টি ইউনিট পাঠানো হয়েছে। পরে আরো ৪টি ইউনিট পাঠানো হয়। সর্বশেষ খবর অনুযায়ী আগুন নিয়ন্ত্রণে আসায় এবং আগুন পাশের একটি ভবনে ছড়িয়ে পড়ায় আরও ৬টি ইউনিট পাঠানো হয়েছে।আগুন এখনও দাউদাউ করে জলছে। নিয়ন্ত্রন কাজ করে যাচ্ছে বিশেষায়িত বাহিনী ফায়ার সার্ভিস।।।

প্রাথমিকভাবে আগুনের কারণ এখনো নিশ্চিত হওয়া যায়নি।।।।

ক্রাইম ডায়রি///ক্রাইম//রাজধানী

5678total visits,129visits today

কললিষ্ট ও মেসেজে মিন্নির অপরাধ প্রমানিতঃ যে কোন সময় তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল

ক্রাইম ডায়রি অনলাইন ডেস্কঃ

বরগুনা ট্রাজেডির খলনায়িকা  মিন্নির সাথে নয়নবন্ডের গভীর সখ্যতা ও কানেকশন ছিল সেটা আগেই অনুমেয় হলেও বিষয়টি এখন প্রমানসাপেক্ষে এতটাই   বাস্তব যে অনেকেই বিশেষ করে যারা মিন্নিকে সেইভ করার চেষ্টা করছিলেন তারাও মুখে কুলুপ এটে দিয়েছেন।।। চলতি সপ্তাহে অথবা আগামী সপ্তাহের যেকোনো দিন রিফাত হত্যাকাণ্ডের তদন্ত প্রতিবেদন আদালতে দাখিল করবে পুলিশ। এদিকে হত্যাকাণ্ডের আগে ও পরে নয়ন বন্ডের সাথে মিন্নির কথোপকথনসহ ম্যাসেজ আদান-প্রদান তথ্যপ্রযুক্তির মাধ্যমে উদ্ধার করেছে পুলিশ। মূলত প্রযুক্তির কারণেই রিফাত হত্যাকাণ্ডে দায়ের করা মামলার প্রধান সাক্ষী থেকে আসামি হয়েছেন মিন্নি।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে বরগুনা জেলা পুলিশের এক সদস্য জানান, নয়ন বন্ডের মায়ের নামে রেজিস্ট্রেশন করা মোবাইল নম্বরটি গোপনে ব্যবহার করতেন মিন্নি। নয়ন বন্ডই এই সিমটি মিন্নিকে দিয়েছিলেন। মূলত রিফাত শরীফের সাথে বিয়ের পরও নয়নের সাথে যোগাযোগ রাখাসহ নানা কারণে গোপনীয়তা বজায় রাখতে ওই সিমটি মিন্নি গোপনে ব্যবহার করতেন। এছাড়া আরও কয়েকটি নম্বর দিয়েও নয়নের সাথে কথা বলতেন মিন্নি।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে বরগুনা জেলা পুলিশের এক সদস্য বলেন, ‘তদন্তের জন্য মিন্নি ও নয়ন বন্ডের ব্যবহৃত নম্বরের কললিস্ট এবং এসএমএস কনটেন্ট প্রযুক্তির মাধ্যমে উদ্ধার করে পুলিশ। এরপর এগুলো যাচাই-বাছাই করা হয়। যাচাই-বাছাইয়ে দেখা গেছে, রিফাত শরীফ মারা যাওয়ার পর নয়ন বন্ড মিন্নির কাছে একটি এসএমএস পাঠান। বিকেল ৪টার কিছু সময় আগে পাঠানো ওই এসএমএসটিতে লেখা ছিল, ‘আমারে আমার বাপেই জন্ম দেছে।’

প্রকাশ না করার শর্তে মিন্নিকে জিজ্ঞাসাবাদে অংশ নেয়া এক পুলিশ সদস্য বলেন, নয়ন বন্ডের এমন এসএমএস পাঠানোর রহস্য উদঘাটনে রিমান্ডে থাকা অবস্থায় আমরা মিন্নির সঙ্গে কথা বলেছি। তখন মিন্নি এ বিষয়ে আমাদের বলেছেন, রিফাত শরীফকে মারার পরিকল্পনার সময় মিন্নি নয়ন বন্ডকে বলেছিলেন, তুমি যদি রিফাত শরীফকে মারতে পার, তাহলে বুঝবো তোমারে তোমার বাপেই জন্ম দিছে।

মূলত মিন্নির এমন কথার উত্তর দিতেই রিফাতের মৃত্যুর পর নয়ন বন্ড মিন্নিকে ওই এসএমএসটি পাঠান। এ বিষয়টি আদালতে মিন্নি বলবেন বলে পুলিশকে জানালেও আদালতে স্বীকারোক্তি দেয়ার সময় এই কথা মিন্নি আদালতে বলেননি বলেও জানান ওই পুলিশ কর্মকর্তা। বিশ্বস্ত ও নির্ভরযোগ্য একজন পরিচয় গোপন রাখার শর্তে    বলেন, হত্যাকাণ্ডের দিন সকাল ৯টা আট মিনিটের সময় এ নম্বর দিয়ে নয়ন বন্ডকে কল দিয়ে ছয় সেকেন্ড কথা বলেন মিন্নি। এরপর আবার সকাল ৯টা ৩৮ মিনিটে নয়ন বন্ডের দেয়া ওই নম্বরটি দিয়েই আবারও নয়ন বন্ডকে কল দেন মিন্নি। এ সময় নয়ন বন্ডের সঙ্গে ৩৫ সেকেন্ড কথা বলেন তিনি। এরপর ৯টা ৫৮ মিনিটের সময় নয়ন বন্ড মিন্নির কাছে থাকা ওই নম্বরটিতে কল দেন। এ সময় মিন্নি ও নয়ন বন্ডের কথোপকথন হয় ৪০ সেকেন্ড।

এরপর সকাল সোয়া ১০টার দিকে কলেজের সামনেই রিফাত শরীফের ওপর হামলা করে বন্ড বাহিনী। হামলার পর বেলা ১১টা ৩১ মিনিটের সময় নয়ন বন্ড মিন্নিকে একটি এসএমএস পাঠান। এরপর আবার বিকেল ৩টায় মিন্নিকে কল দিয়ে মিন্নির সাথে এক মিনিট ২০ সেকেন্ড কথা বলেন নয়ন বন্ড।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে মিন্নি ও নয়ন বন্ডের বিয়ের এক সাক্ষী বলেন, নয়ন বন্ডের মায়ের নামে রেজিস্ট্রেশন করা নম্বরটি একসময় নয়ন বন্ড নিজেও ব্যবহার করতেন। পরে ওই নম্বরটি পরিবর্তন করেন নয়ন বন্ড।

তিনি আরও বলেন, মিন্নি মাদকাসক্ত ছিল। এ কারণেই সে নয়নের সঙ্গে ঘনিষ্ঠতা বজায় রাখত। এ সুযোগ পুরোপুরি কাজে লাগাতো নয়ন বন্ড। রিফাত শরীফের মাধ্যমেই মিন্নির সঙ্গে নয়ন বন্ডের পরিচয় হয়। নয়ন বন্ড ও মিন্নি উভয়ই মাদকসেবী হওয়ায় তাদের মধ্যে ঘনিষ্ঠতা হতে সময় লাগেনি।

এদিকে বরগুনার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত, বরগুনা জেলা ও দায়রা জজ আদালত এবং হাইকোর্টেও মিন্নির জামিন আবেদনের পর শুনানি হয়েছে। কিন্তু কোনো আদালতই জামিন মঞ্জুর করেননি মিন্নির। মিন্নির প্রতিটি জামিন শুনানিতেই বাদী ও রাষ্ট্রপক্ষ আদালতে উপস্থাপন করেছেন মিন্নি ও নয়ন বন্ডের কথোপকথন ও ম্যাসেজ আদান-প্রদান-সংক্রান্ত কললিস্ট এবং হত্যাকাণ্ডের সময় সিসি ক্যামেরায় ধারণ করা ফুটেজ।

এছাড়া এ হত্যা মামলার দুই নম্বর আসামি রিফাত ফরাজি, তিন নম্বর আসামি রিশান ফরাজি, ছয় নম্বর আসামি রাব্বি আকন এবং ১২ নম্বর আসামি টিকটক হৃদয় হত্যাকাণ্ডে মিন্নির সম্পৃক্ততার বিষয়টি স্বীকার করে আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। এছাড়া মিন্নি নিজেও রিফাত হত্যাকাণ্ডে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন।

এ বিষয়ে বরগুনার আদালতে মিন্নির আইনজীবী অ্যাডভোকেট গোলাম মোস্তাফা কাদের বলেন, গত ৩০ জুলাই বরগুনা জেলা ও দায়রা জজ আদালতে মিন্নির জামিন শুনানির সময় বাদী এবং রাষ্ট্রপক্ষ আদালতে সিসি ক্যামেরার ফুটেজসহ মিন্নি ও নয়ন বন্ডের কথোপকথন এবং ম্যাসেজ আদান-প্রদান-সংক্রান্ত কললিস্ট উপস্থাপন করেছিল এবং আদালত তা আমলেও নিয়েছিলেন।

এ বিষয়ে ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল মো. রেজাউল করিম বলেন, হাইকোর্টের বিচারপতি শেখ মো. জাকির হোসেন ও বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমানের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চেও বাদী ও রাষ্ট্রপক্ষ সিসি ক্যামেরার ফুটেজসহ মিন্নি ও নয়ন বন্ডের কথোপকথন ও ম্যাসেজ আদান-প্রদান সংক্রান্ত কললিস্ট উপস্থাপন করেছিল। শুনানির সময় যেসব গ্রাউন্ডে আসামিপক্ষ মিন্নির জামিন মঞ্জুরের জন্য আদালতে বক্তব্য উপস্থাপন করে সেসব গ্রাউন্ডের বিপরীতে পর্যাপ্ত প্রমাণপত্র উপস্থাপন করতে পারেননি।

এ বিষয়ে রিফাত হত্যা মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা বরগুনা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি তদন্ত) মো. হুমায়ুন কবির বলেন, রিফাত হত্যা মামলার তদন্ত কার্যক্রম প্রায় শেষের দিকে। তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের শেষ মুহূর্তের প্রস্তুতি নিচ্ছে পুলিশ।

তিনি আরও বলেনে, মামলার আলামত হিসেবে নয়ন বন্ডের বাসা থেকে মিন্নির ব্যবহৃত একটি জামা, একটি চিরুনি, খোদাই করে নয়ন ও মিন্নির নাম লেখা একটি শামুক এবং নয়ন বন্ডের রুমের দেয়ালে বাধাই করে টাঙানো মিন্নির একটি ছবি জব্দ করেছে পুলিশ। এছাড়াও অন্যান্য তথ্য উপাত্তসহ আরও অসংখ্য  প্রমাণ রয়েছে যাতে মিন্নির অপরাধ সহজে প্রমানিত হয়।

ক্রাইম ডায়রি///ক্রাইম//আদালত/অপরাধজগত

5678total visits,129visits today

নরসিংদীতে বাস-সিএনজি মুখোমুখি সংঘর্ষঃঃ বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রীসহ নিহত-২

আলামিন মেম্বার,নরসিংদী সংবাদদাতাঃ

ঈদের ছুটিতে রাস্তাঘাট যখন ফাঁকা ঠিক তখনি  নরসিংদীর শিবপুরে বাস-সিএনজি সংঘর্ষে বিশ্ববিদ্যালয়ছাত্রীসহ দুজন নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন আরো তিনজন। মঙ্গলবার রাতে উপজেলার চান্দারটেক এলাকায় রয়েল পরিবহনের একটি বাসের সঙ্গে ইটাখোলাগামী একটি সিএনজির মুখোমুখি সংঘর্ষে এ হতাহতের ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলেন- উপজেলার ধানুয়া গ্রামের হারুন মিয়ার মেয়ে লামিয়া আক্তার (২৪) ও একই উপজেলার বৈলাব গ্রামের সিএনজিচালক রিপন মিয়া (৩৫)। নিহত লামিয়া আক্তার পটুয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রী।

এ ঘটনায় আহত হয়েছেন লামিয়ার মা ও প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষিকা আসমা-উল হুসনা (৫২), মজিবুর রহমান (২৬) ও রহিম (৩৮)। হতাহতরা সবাই সিএনজির যাত্রী ছিলেন।

পুলিশ জানিয়েছে, মঙ্গলবার রাতে উপজেলার চান্দারটেক এলাকায় ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা মঠখলাগামী রয়েল পরিবহনের একটি বাসের সঙ্গে ইটাখলাগামী একটি সিএনজির মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এতে ঘটনাস্থলেই সিএনজিচালক রিপন মিয়া নিহত হন। পরে স্থানীয়রা আহতদের উদ্ধার করে শিবপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে চিকিৎসকরা লামিয়াকেও মৃত বলে ঘোষণা করেন।

শিবপুর মডেল থানা সুত্রে জানা গেছে, ‘বাসটিকে আটক করা হয়েছে। তবে চালক ও হেলপার পলাতক রয়েছে। তাদের গ্রেপ্তার করে আইনের আওতায় আনা হবে। এ জন্য অভিযান অব্যহত আছে।

ক্রাইম ডায়রি//ক্রাইম//জেলা

5678total visits,129visits today

চামড়া ফেলে দিলেন মাদ্রাসা কতৃপক্ষঃঃ ৫০ টাকাও দাম পাচ্ছেননা মৌসুমি ব্যবসায়ীরা

শরীফা আক্তার স্বর্নাঃ

ঈদের দিন কুরবানির মাঠে গরু কুরবানী দিয়ে বরাবরের মত চামড়া ক্রেতার দিকে তাকিয়ে ছিলেন বিক্রেতারা।৷ কিন্তু দেখা মিলল না দীর্ঘসময়। হ্যা, বগুড়ার শেরপুর থানাধীন ফুডভিলেজ খ্যাত ধনকুন্ডি কুরবানির মাঠের কথাই বলছি। বগুড়া সদর আসনের এমপি এবং শেরপুর ধুনটের চারবার নির্বাচিত এমপি গোলাম মোহাম্মদ সিরাজের বাড়ির কুরবানির মাঠে প্রতিবছরই শতাধিক গরু কুরবানী হয়।।। চামড়া কেনাবেচার জন্য প্রতি বছরই এখানে পাইকাররা আসেন। এবার আসেননি। স্থানীয় কিছু যুবক শুরু করলেও তিন হতে পাঁচশ টাকা দাম বলছিলেন  লক্ষাাাধিক টাকা দামের গরুর জন্য। তাই বেশির লোকই চামড়া মাদ্রাসায় দান করেছেন।কিন্তু মাদ্রাসার হুজুররাও সেই চামড়া পরিবহন করে নিয়ে পরিবহন খরচ তুলতে পেরেছেন কি???           ৩০০ থেকে ৪০০ টাকা দিয়ে সংগ্রহ করা চামড়া আড়তদারদের কাছে ৫০ টাকায়ও বিক্রি করতে পারছেন না মৌসুমি কাঁচা চামড়া ব্যবসায়ীরা। সবচেয়ে বড় চট্টগ্রামের আতুরার ডিপোসহ,নাটোর,বগড়া,সিরাজগ, রাজশা, টাঙ্গাইল,বরিশাল,সিলেট,পঞ্চগড়সহ দেশের প্রায় সব জেলাতেই  চামড়ার আড়তে এমনটা দেখা যায়।মৌসুমি ব্যবসায়ীরা এ জন্য আড়তদারদের ‘সিন্ডিকেটকে’ দায়ী করেছেন।

আড়তদারেরা এবার চট্টগ্রামে সাড়ে ৫ লাখ পিস গরুর চামড়া ও ৮০ হাজার পিস ছাগলের চামড়া সংগ্রহের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করেছেন। আড়তদাররা আশা করছেন চট্টগ্রামে এবার ৪ লাখ গরু, ১ লাখ ২০ হাজার ছাগল, ১৫ হাজারের মতো মহিষ এবং ১৫ হাজারের মতো ভেড়া কোরবানি দেওয়া হয়েছে।

ঢাকার বাইরে এবার সরকার প্রতি বর্গফুট চামড়ার দর ৩৫ টাকা থেকে ৪০ টাকা নির্ধারণ করে দিয়েছে। বড় গরুর প্রতিটি চামড়া সাধারণত ১৮ থেকে ২০ বর্গফুট হয়। ছোট গরুর চামড়া সর্বোচ্চ ১২ থেকে ১৫ বর্গফুট পর্যন্ত হয়।

মঙ্গলবার দুপুর পর্যন্ত লক্ষ্যমাত্রার প্রায় ৭০ শতাংশ চামড়া সংগ্রহ করা হয়েছে বলে জানান আড়তদারেরা। বাকি চামড়া কয়েক দিনের মধ্যে আতুরার ডিপোর আড়তে চলে আসবে বলে তাদের ধারণা।

মৌসুমি ব্যবসায়ীদের অভিযোগ সম্পর্কে চট্টগ্রামের আড়তদারদের ভাষ্য- ঢাকার ট্যানারি ব্যবসায়ীরা ঈদের মৌসুমেও পাওনা টাকা পরিশোধ না করায় তারা মৌসুমি ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে চামড়া কিনতে পারছেন না। এছাড়া মৌসুমি ব্যবসায়ীরা অনেকে আড়তে চামড়া নিয়ে আসতে দেরি করায়, চামড়ার গুণগত মান নষ্ট হয়ে যাওয়াতে অনেক চামড়া কেনা সম্ভব হয় না বলেও জানান তারা।

অন্যদিকে, কাঁচা চামড়া সংগ্রহকারীদের অভিযোগ- এবার কোরবানির চামড়ার বাজারকে কেন্দ্র করে পাইকারি চামড়া ক্রেতা এবং আড়তদারের প্রতিনিধিরা মিলে সিন্ডিকেট তৈরি করেছেন। এছাড়া, কোরবানিদাতাদের অনেকেই চামড়ার প্রত্যাশিত দাম না পাওয়ার কারণে তারা কাঁচা চামড়া এতিমখানায় দিয়েছেন। সিন্ডিকেটের সদস্যরা এতিমখানা থেকে সরাসরি কাঁচা চামড়া সংগ্রহ করেছেন।

দেশের বিভিন্ন  এলাকায় গিয়ে দেখা যায়, সড়কের ওপর চামড়া রেখে আড়তদারদের জন্য অপেক্ষা করছিলেন মৌসুমি ব্যবসায়ীরা। কিন্তু আড়তের লোকদের সেগুলো কেনায় কোন আগ্রহ দেখা যায়নি।

 আবার দানপেয়ে চামড়া সংগ্রহ করা হলেও ন্যায্যমূল্য না পাওয়ায় সেগুলো সিলেটের  আম্বরখানা এলাকায় রাস্তায় ফেলে দিয়েছেন মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষ। পাশাপাশি সিলেট সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আরিফুল হককে ডেকে এনে এগুলো অপসারণ করার অনুরোধ জানান তারা। মেয়র আরিফ তাদের প্রতি সমবেদনা জানিয়ে চামড়া সিন্ডিকেটের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানান।

সিলেট সিটি কর্পোরেশনের ৫ নম্বর ওয়ার্ডের স্থানীয় কাউন্সিলর রেজওয়ান আহমদ জানান, সারাদিন বাসা-বাড়িতে ঘুরে আমাদের মাদ্রাসা শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা ৮২৬টি গরু ও ২২৭টি খাসির চামড়াসহ মোট ১ হাজার ৫৩টি পশুর চামড়া সংগ্রহ করেন। পরে সোমবার (১২ আগস্ট) রাতে আম্বরখানায় চমড়াগুলো বিক্রি করতে নিয়ে গিয়েছিলেন মাদ্রাসা শিক্ষকরা। চামড়া ব্যবসায়ীরা সিন্ডিকেট তৈরি করে চামড়ার দাম কল্পনাতীতভাবে কমিয়ে দেন। তারা মাত্র ২৫-৩০ টাকা দাম করছিলেন প্রতি পিস চামড়ার। এই দামের চেয়ে বেশি খরচ পড়েছে চামড়াগুলো সংগ্রহ করতে। দেশের বিভিন্ন অঞ্চলের বিশেষ করে মফস্বলে চামড়া পরিবহন করে দুরের বাজারে কিংবা শহরে গিয়ে ভাড়া উঠানো যাবে কিনা সন্দেহে চামড়া ফেলে দিয়েছেন মাদ্রাসার ছাত্ররা।।।।

ক্রাইম ডায়রি /// জাতীয়

5678total visits,129visits today

১৭ আগষ্ট হতে হজ্বের ফিরতি ফ্লাইট শুরু

রফিকুল ইসলাম, জেদ্দা, সৌদিআরব হতেঃ

সোনার মক্কা মদীনায় থাকতে ইচ্ছে কার না হয়।কিন্তু আসতে নাহি মন চায়,তবুও আসিতেই হয়। হ্যা, হজের আনুষ্ঠানিকতা শেষ হচ্ছে আজ। মঙ্গলবার সন্ধার পূর্বে মিনায় অবস্থিত ছোট, মধ্যম ও বড় জামারায় শয়তানকে পাথর নিক্ষেপের মধ্য দিয়েই মূলত পাঁচদিনের হজের আনুষ্ঠানিকতা শেষ হচ্ছে। এরপর হাজীরা নির্ধারিত ফ্লাইটের অপেক্ষায় মক্কা কিংবা মদিনায় অবস্থান করবেন। নির্দিষ্ট দিনে তারা দেশে ফিরবেন। এবছর বাংলাদেশ থেকে হজ ব্যবস্থার কাজে নিয়োজিত কর্মকর্তাসহ মোট হাজীর সংখ্যা এক লাখ ২৭ হাজার ১৫২ জন। আগামী ১৭ আগষ্ট শনিবার থেকে শুরু হবে হজের ফিরতি ফ্লাইট। আর ফিরতি ফ্লাইট শেষ হবে ১৫ সেপ্টেম্বর। এদিকে বাংলাদেশ থেকে হজে যাওয়ার পর এ পর্যন্ত বাংলাদেশের ৬৩ জন হাজী সৌদী আরবে ইন্তেকাল করেছেন। সৌদী আরবের হজ অফিসের দেয়া তথ্যমতে মারা যাওয়া হাজীদের মধ্যে মক্কায় মারা গেছেন ৫৬ জন, মদিনায় ৬ জন এবং জেদ্দায় মারা গেছেন এক জন হাজী। বার্ধক্যজনিত কারণে মারা যাওয়া হাজীদের মধ্যে পুরুষ হাজী ছিলেন ৫৫ জন এবং নারী  হাজী ০৮ জন।

ক্রাইম ডায়রি//জাতীয়

5678total visits,129visits today

কাল বকরী ঈদঃ ত্যাগের মহিমায় উদ্ভাসিত হওয়ার দিন

ক্রাইম ডায়রি ডেস্কঃ

ত্যাগের মহিমায় উদ্ভাসিত হয়ে বছর ঘুরে খুশির বারতা নিয়ে আবার এসেছে পবিত্র ঈদুল আজহা।  প্রতিটি মুসলমান আগামীকাল সোমবার পবিত্র ঈদুল আজহা উদযাপন করবেন। এ উপলক্ষে রাজধানী ঢাকাসহ বিভিন্ন নগরীর লাখ লাখ মানুষ শেকড়ের টানে ইতিমধ্যেই ফিরে গেছেন শৈশবের চেনা জনপদ গ্রাম-গঞ্জে। পথে আছেন  অনেকেই।  দুই ঈদের মধ্যেে  বকরী ঈদ  একাধিক কারণে বৈশিষ্ট্যমন্ডিত। এর মধ্যে অন্যতম হলো হালাল পশু কোরবানি করা এবং সামর্থ্যবানদের জন্য পবিত্র হজব্রত পালন করা।

হজব্রত পালন করতে সবাই সক্ষম না হলেও মহান মনিবের অনুগ্রহ লাভে ধন্য হতে পশু কোরবানির মাধ্যমে যথাযথ ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্যের মধ্য দিয়ে মুসলিম সম্প্রদায় উদযাপন করবে অন্যতম প্রধান এই ধর্মীয় উৎসব।

সেই প্রায় চার হাজার বছর আগে আল্লাহ পাকের সন্তুষ্টি লাভের জন্য হজরত ইব্রাহিম (আ.) নিজ পুত্র হজরত ইসমাইল (আ.)-কে কোরবানি করার উদ্যোগ নিয়েছিলেন। কিন্তু পরম করুণাময়ের অপার কুদরতে হজরত ইসমাইল (আ.)-এর পরিবর্তে একটি দুম্বা কোরবানি হয়ে যায়। হজরত ইব্রাহিম (আ.)-এর সেই ত্যাগের মহিমার কথা স্মরণ করে মুসলিম সম্প্রদায় জিলহজ মাসের ১০ তারিখে আলস্নাহ পাকের অনুগ্রহ লাভের কামনায় পশু কোরবানি করে থাকে। আর্থিকভাবে সামর্থ্যবান মুসলমানদের জন্য আলস্নাহ কোরবানি ফরজ করে দিয়েছেন। তাই কোরবানি করাই এই দিনের উত্তম ইবাদত বলে ধর্মীয়ভাবে বলা হয়েছে।

সেই ত্যাগ ও আনুগত্যের আদর্শে অনুপ্রাণিত হয়ে সারা দেশের মুসলিম সম্প্রদায় কাল দিনের শুরুতেই ঈদগাহ বা মসজিদে সমবেত হবে ঈদুল আজহার দুই রাকাত ওয়াজিব নামাজ আদায়ের জন্য। নামাজের খুতবায় খতিব তুলে ধরবেন কোরবানির তাৎপর্য। কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে ধনী-গরিব নির্বিশেষে সবাই একসঙ্গে নামাজ আদায়ের পর কোলাকুলি করে শুভেচ্ছা বিনিময় করবেন। ঘুচে যাবে সব ভেদাভেদ। জিলহজ মাসের ১০ তারিখে ঈদুল আজহা উদযাপিত হলেও পরের দুই দিনও পশু কোরবানি করার বিধান রয়েছে। সামর্থ্যবান মুসলমানদের জন্য কোরবানি ফরজ হলেও ঈদের আনন্দ থেকে দরিদ্র-দুস্থরাও বঞ্চিত হবে না। কোরবানির পশুর চামড়া বিক্রির সমুদয় অর্থ এবং কোরবানি দেয়া পশুর মাংসের তিন ভাগের একভাগ তাদের মধ্যে বণ্টন করে দেয়া হবে। ঈদুল আজহা শুধুমাত্র পশু কোরবানির আনুষ্ঠানিকতাই নয়, এই ঈদ সমগ্র বিশ্বের মুসলমানদের ত্যাগ, আত্মসমর্পণ ও আত্মোপলব্ধির শিক্ষা দেয়। ঈদুল আজহার চেতনা মহান আলস্নাহর ইচ্ছার কাছে নিজেকে সঁপে দেয়ার শিক্ষাও দেয়। ইসলামের দৃষ্টিতে ঈদুল আজহার দিনে হালাল পশু কোরবানি করা অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ণ কাজ। পবিত্র কুরআনে সূরা কাওসারে বলা হয়েছে, ‘অতএব আপনার পালনকর্তার নামে নামাজ পড়ুন এবং কোরবানি করুন।’ সূরা হজে বলা হয়েছে ‘কোরবানি করা পশু মানুষের জন্য কল্যাণের নির্দেশনা।’ কোরবানির পশু সম্পর্কে কুরআন মজিদে আরও বলা হয়েছে, ‘এগুলোর গোশত বা রক্ত আমার কাছে পৌঁছায় না, কিন্তু তোমাদের তাকওয়া ঠিকই পৌঁছে যায়।’ রাসুল (সাঃ)-এর হাদিসে বলা হয়েছে, ‘ঈদুল আজহার দিন কোরবানির চেয়ে আর কোনো কাজ আলস্নাহর কাছে অধিক পছন্দনীয় নয়।’ অন্যত্র তিনি বলেছেন, ‘যে ব্যক্তি সামর্থ্য থাকার পরও কোরবানি দিল না সে যেন ঈদগাহে না যায়।’

ঈদ উপলক্ষে আজ রোববার থেকে ৩ দিনের সরকারি ছুটি শুরু হয়েছে। চাকরিজীবীদের কেউ কেউ ঈদ উদযাপনের জন্য ১৪ আগস্ট একদিনের অতিরিক্ত ছুটি নিয়েছেন। ফিরে আসবেন আগামী সপ্তাহে। সংবাদপত্র অফিসগুলোতেও ৩ দিনের ছুটি শুরু হচ্ছে আজ রোববার থেকে। ছুটি শেষ হবে মঙ্গলবার। এ কারণে আগামীকাল থেকে পরবর্তী ৩ দিন দেশের কোনো সংবাদপত্র প্রকাশিত হবে না।

রাজধানীতে ঈদের প্রধান জামাত অনুষ্ঠিত হবে সকাল সাড়ে ৮টায় হাইকোর্ট-সংলগ্ন জাতীয় ঈদগাহে। নারীদের জন্যও এখানে ঈদের নামাজ আদায়ের ব্যবস্থা থাকছে। মহিলাদের ঈদের জামাতে অংশ নেয়ার জন্য ঈদগাহের দক্ষিণ দিকে আলাদা প্রবেশপথ ও বিশেষ ব্যবস্থা করা হয়েছে। মুসলিস্নদের গাড়ি রাখা ও ঈদগাহকে নামাজ আদায়ের উপযোগী করার জন্য ময়দানের মাটি সমান করা, ঘাস কাটা, অজুর পানি নিশ্চিত করেছে ঢাকা সিটি করপোরেশন।

এ ছাড়া বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদে পর্যায়ক্রমে ৫টি ঈদ জামাত অনুষ্ঠিত হবে। প্রথম জামাত সকাল ৭টা, দ্বিতীয় জামাত সকাল ৮টা, তৃতীয় জামাত সকাল ৯টা, চতুর্থ জামাত সকাল ১০টা এবং পঞ্চম ও সর্বশেষ জামাত অনুষ্ঠিত হবে সকাল ১০টা ৪৫ মিনিটে।

জাতীয় ঈদগাহে ঈদের নামাজে ইমামতি করবেন বায়তুল মুকাররম জাতীয় মসজিদের সিনিয়র পেশ ইমাম হাফেজ মুফতি মাওলানা মিজানুর রহমান। বিকল্প ইমাম হিসেবে উপস্থিত থাকবেন ইসলামিক ফাউন্ডেশনের উপ-পরিচালক ড. মাওলানা মুশতাক।

তবে ডেঙ্গুর জ্বরের কারনে  অনেক পরিবারেই এ আনন্দ অনেকটা স্তিমিত  হয়ে গেছে। বিশেষ করে যে সব পরিবারের এক বা একাধিক সদস্য এখনো আশঙ্কাজনক অবস্থায় বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে, তাদের কাছে ঈদ যেন শোকের বার্তা বয়ে এনেছে। এছাড়া ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে যাদের আদরের সন্তান, ভাই-বোন কিংবা বাবা-মাসহ নিকটাত্মীয়-স্বজন মারা গেছে, তাদের পরিবারে এখন শোকের মাতম বইছে। আসুন ঈদের আনন্দ নিয়ে সবাই ব্যস্ততার পাশাপাশি সবে মিলে একসাথে ডেঙ্গু মোকাবেলায় কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে দেশের স্বার্থে কাজ করি।

ক্রাইম ডায়রি//জাতীয়

5678total visits,129visits today