• রবিবার ( রাত ৩:০৬ )
    • ১৮ই জানুয়ারি, ২০২০ ইং

গণমানুষের হৃদয়ে স্থান করে নিতে নেতা কর্মীদের প্রতি আওয়ামীলীগের নব নির্বাচিত সভাপতি শেখ হাসিনার আহবান

ক্রাইম ডায়রি ডেস্কঃ

আওয়ামী লীগের ২১তম জাতীয় সম্মেলনে শেখ হাসিনা সভাপতি এবং ওবায়দুল কাদেরকে সাধারণ সম্পাদক হিসেবে পুনঃনির্বাচিত হয়েছেন। আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনের দ্বিতীয় দিনে আজ শনিবার ইর্ঞ্জিনিয়ার্স ইন্সটিটিউশনে কাউন্সিল অধিবেশনে তাদেরকে নির্বাচিত করা হয়।

দলের ২১তম জাতীয় সম্মেলন উপলক্ষে গঠিত নির্বাচন কমিশনের প্রধান কমিশনার এডভোকেট ইউসুফ হোসেন হুমায়ুন সভাপতি হিসেবে শেখ হাসিনা ও সাধারণ সম্পাদক পদে ওবায়দুল কাদেরের নাম ঘোষণা করেন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আদর্শ ভিত্তিক রাজনীতি করার মাধ্যমে জনগণের আস্থা ও বিশ্বাস অর্জন এবং সংগঠনকে শক্তিশালী করে গড়ে তোলার জন্য আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘মানুষের আস্থা ও বিশ্বাস অর্জন করতে হবে, মানুষ যাতে স্বতস্ফূর্ত ভাবে ভোট দিয়ে আমাদেরকে নির্বাচিত করে এবং আমরা যেন দেশসেবা করে যেতে পারি। জাতির পিতার স্বপ্নের সোনার বাংলাদেশ আমরা গড়তে পারি।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, লাখো শহীদের রক্তের বিনিময়ে বাংলাদেশ যে স্বাধীনতা অর্জন করেছে সেই রক্ত যেন বৃথা না যায়, সে লক্ষ্য নিয়েই তাঁর সরকার কাজ করে বিগত ১০ বছরের শাসনামলে বাংলাদেশকে অনেক দূর এগিয়ে নিয়ে গেছে। লক্ষ্য আরো অনেক দূর যেতে হবে। সেজন্য সংগঠনকে শক্তিশালী করতে হবে।

আব্দুল মতিন খসরু সভাপতি পদে শেখ হাসিনার নাম প্রস্তাব করেন এবং পিযুষ কান্তি ভট্টাচার্য তা সমর্থন করেন। নির্বাচন কমিশনার ইউসুফ হোসেন হুমায়ুন এ পদে আর কোনো নাম প্রস্তাব না পাওয়ায় শেখ হাসিনাকে আওয়ামী লীগের সভাপতি হিসেবে ঘোষণা করেন।
এডভোকেট জাহাঙ্গীর কবির নানক সাধারণ সম্পাদক হিসেবে ওবায়দুল কাদেরের নাম প্রস্তাব করলে তাতে সমর্থন জানান আব্দুর রহমান। নির্বাচন কমিশনার ইউসুফ হোসেন হুমায়ুন এ পদে আর কোনো নাম প্রস্তাব না পাওয়ায় ওবায়দুল কাদেরকে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হিসেবে ঘোষণা করেন।

পরে ২১তম জাতীয় সম্মেলনে নব নির্বাচিত আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা সভাপতিমন্ডলীর সদস্য, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক, সাংগঠনিক সম্পাদক, সম্পাদিকমন্ডলীর সদস্যদের নাম ঘোষণা করেন।

সভাপতিমন্ডলীর সদস্যরা হলেন-সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী, বেগম মতিয়া চৌধুরী, শেখ ফজলুল করিম সেলিম, মোহাম্মদ নাসিম, কাজী জাফর উল্লাহ, অ্যাডভোকেট সাহারা খাতুন, নুরুল ইসলাম নাহিদ, ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন, পীযুষ কান্তি ভট্টাচার্য্য, ড. মো. আব্দুর রাজ্জাক, লে. কর্নেল (অব.) মুহাম্মদ ফারুক খান, রমেশ চন্দ্র সেন, অ্যাডভোকেট আব্দুল মান্নান খান, আবদুল মতিন খসরু, শাজাহান খান, জাহাঙ্গীর কবির নানক ও আবদুর রহমান।

যুগ্ম সাধারণ সম্পাদকরা হলেন, মাহাবুব-উল-আলম হানিফ, ডা. দীপু মণি, ড. হাছান মাহমুদ ও আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম।

সাংগঠনিক সম্পাদকরা হলেন, আহমদ হোসেন, বিএম মোজাম্মেল হক, আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন, এস এম কামাল হোসেন ও মির্জা আজম।

এছাড়াও আন্তর্জাতিক সম্পাদক শাম্মী আক্তার, আইন বিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট নাজিবুল্লাহ হিরু, প্রচার সম্পাদক ড. আব্দুস সোবহান গোলাপ, কৃষি ও সমবায় বিষয়ক সম্পাদক ফরিদুন্নাহার লাইলী, ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক সুজিত রায় নন্দী, দফতর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া, বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার আব্দুস সবুর, মহিলা বিষয়ক সম্পাদক মেহের আফরোজ চুমকি, মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট মৃণাল কান্তি দাস, যুব ও ক্রীড়া সম্পাদক হারুন অর রশীদ, শিক্ষা ও মানবসম্পদ বিষয়ক সম্পাদক হয়েছেন শামসুন নাহার চাঁপা, সংস্কৃতি বিষয়ক সম্পাদক অসীম কুমার উকিল এবং স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যা বিষয়ক সম্পাদ ডা. রোকেয়া সুলতানার নাম ঘোষণা করেন।

সম্মেলনে বঙ্গকন্যা ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কাউন্সিলরদের উদ্দেশ্য করে   বলেন, ‘এখানে কাউন্সিলরবৃন্দ আছেন- সংগঠনকে শক্তিশালী করে গড়ে তুলতে হবে। আর জাতির পিতার যে আদর্শ সেই আদর্শ মেনেই চলতে হবে।’প্রধানমন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা আজ ২১ শে  ডিসেম্বর, ২০১৯ইং শনিবার আওয়ামী লীগের ২১ তম জাতীয় সম্মেলনের দ্বিতীয় পর্ব কাউন্সিল অধিবেশনের শুরুতে প্রদত্ত ভাষণে একথা বলেন।

সকাল সাড়ে ১০টায় শুরু হওয়া কাউন্সিল অধিবেশনে সভাপতিত্ব করেন শেখ হাসিনা। রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন প্রাঙ্গণে নির্মিত প্যান্ডেলে অনুষ্ঠিত হচ্ছে এই অধিবেশন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘২৯টি বছর এদেশের জনগণের ভাগ্য নিয়ে যারা ছিনিমিনি খেলেছে তাদের বিরুদ্ধে যত সংগ্রাম ও আন্দেলন এং জনগণের অধিকার প্রতিষ্ঠার যত সংগ্রাম আওয়ামী লীগই সে সংগ্রাম করেছে এবং আওয়ামী লীগই এদেশের মানুষের ভাগ্য পরিবর্তন করে দিয়েছে।’

তিনি বলেন, বাঙালির জাতির ভাগ্য পরিবর্তন করা, একে উন্নত-সমৃদ্ধ করে গড়ে তুলে বিশ্বে মর্যাদার আসনে অধিষ্ঠিত করার লক্ষ্য নিয়েই জাতির পিতা তাঁর সারাটি জীবন উৎসর্গ করে যান। দুঃখী মানুষের মুখে হাসি ফোটাবার জন্য তিনি আজীবন জেল, জুলুম-নির্যাতন সহ্য করে গেছেন।

জাতির পিতার অবদান ও আওয়ামী লীগকে গড়ে তোলার কথা তুলে ধরে বঙ্গবন্ধুকন্যা বলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এমনভাবে সংগঠনটি গড়ে তোলেন, এর মাধ্যমে সমগ্র জাতিকে ঐক্যবদ্ধ করে দেশের স্বাধীনতা অর্জন করেন।

 

সরকার প্রধান বলেন, বাংলার জনগণকে জাতির পিতার স্বাধীনতা এনে দিয়েছিলেন। কিন্তু মাত্র সাড়ে ৩ বছরের শাসনকালে জনগণকে অর্থনৈতিক মুক্তি এনে দিতে পারেন নাই। সেই স্বপ্ন পূরণই তাঁর রাজনীতির লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, তাঁর বাবা-মা’য়ের আত্মা যেন শান্তি পায়।

প্রধানমন্ত্রী ব্যক্তিগত চাওয়া-পাওয়ার উর্ধ্বে উঠে দেশের জন্য কাজ করে যাওয়ায় নেতা-কর্মীদের আহ্বান জানিয়ে বলেন, ‘দেখা যায় যে, অনেকেই ক্ষমতায় আসার পরে জনপ্রিয়তা ধরে রাখতে পারে না। কিন্তু আমরা সেটা পেরেছি। মানুষের আস্থা ও বিশ্বাস অর্জন করেছি। সেক্ষেত্রে আমি বলবো বলবো সকলকে সেই চিন্তা থেকেই কাজ করতে হবে।’

তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ জাতির পিতার হাতে গড়া সংগঠন এবং জাতির যেকোন ক্রান্তি লগ্নে এর নেতা-কর্মীরা জনগণের পাশে দাঁড়িয়েছে এবং জনগণের কল্যাণে কাজ করেছে। প্রতিটি কাউন্সিলরকে এটা মাথায় রাখতে হবে- জাতির পিতার সেই আদর্শ নিয়েই আমরা দেশকে গড়ে তুলবো।’

তিনি বলেন, জাতির পিতা স্বাধীনতার পরে একটি যুদ্ধ বিধ্বস্থ দেশ গড়ে তুলে বাংলাদেশকে স্বল্পোন্নত দেশের পর্যায়ে রেখে গিয়েছিলেন আর এরপরেই জাতির জীবনে ১৫ আগষ্ট বিপর্যয় নিয়ে আসে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ’৭৫ এর জাতির পিতাকে হত্যার পর এদেশে যে হত্যা, ক্যু এবং ষড়যন্ত্রের রাজনীতি এদেশে শুরু হয়েছিল। যেখানে গণতন্ত্র ছিল না, কারফিউ গণতন্ত্র ছিল। যেখানে সেনাতন্ত্র ছিল, সামরিক স্বৈর শাসকরা রাষ্ট্র শাসন করেছে দীর্ঘ ২১ বছর, এরপর আবার ২০০১ থেকে ২০০৮ পর্যন্ত।

 

 

আওয়ামী লীগ সভাপতি বলেন, জনগণ যে সরকারের সেবা পেতে পারে, জনগণের কল্যাণ করতে পারে, তাঁদের ভাগ্য পরিবর্তন করতে পারে, এটা কেবল আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পরেই জনগণ উপলদ্ধি করতে পেরেছে।

তিনি বলেন, উড়ে এসে জুড়ে বসারা সবসময় নিজেদের ভাগ্য নিয়ে এবং অসৎ উপায়ে ক্ষমতা দখলকে বৈধ করার কাজেই ব্যস্ত ছিল। তারা জনগণের কথা চিন্তা করে নাই।

সরকার প্রধান বলেন, এদেশে ঋণ খেলাপি কালচার, জঙ্গিবাদ, সন্ত্রাস, মাদক, দুর্নীতি এবং বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে মেধাবী ছাত্রদের হাতে অস্ত্র তুলে দিয়ে তাদেরকে ব্যবহার করাসহ পুরো সমাজটাকে তারা ধ্বংসের পথে টেনে নিয়ে যায়।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, যে সরকারের কোন নীতি আদর্শ থাকে না, কোন লক্ষ্য থাকে না, সে সরকার চলে কি করে, প্রশ্ন তোলেন তিনি।
তিনি এ সময় জাতির পিতার লেখা অসমাপ্ত আত্মজীবনী, কারাগারের রোজনামচা এবং জাতির পিতার বিরুদ্ধে পাকিস্তানী গোয়েন্দাদের গোপন প্রতিবেদন নিয়ে প্রকাশিত ১৪ খন্ড ভলিউমের বইগুলো দলের প্রতিটি নেতা-কর্মীকে পড়ার পরামর্শ দেন।

কারো বিরুদ্ধে প্রকাশিত গোয়েন্দা রিপোর্ট নিয়ে অদ্যাবধি কেউ কোন পুস্তক রচনা না করলেও জাতির পিতা কিভাবে দেশের কল্যাণে কাজ করে গেছেন, তাঁর বিরুদ্ধে কি কি ষড়যন্ত্র হয়েছিল, কি কি অপপ্রচার হয়েছিল-সেগুলো তুলে ধরার জন্যই ’সিক্রেট ডকুমেন্ট অন ফাদার অব দি নেশন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান’ শীর্ষক এ সংক্রান্ত বইগুলো তিনি প্রকাশের উদ্যোগ নিয়েছেন বলেও উল্লেখ করেন প্রধানমন্ত্রী।
তিনি কাউন্সিলরদের উদ্দেশ্যে বলেন, ‘বইগুলো থেকে আপনাদের অনেক কিছু শিক্ষা নেওয়ার আছে।’শৈত্য প্রবাহের কারণে প্রচন্ড শীত অনুভূত হওয়ায় কাউন্সিলের কর্মসূচি সংক্ষেপ করার কথাও বলেন প্রধানমন্ত্রী।

/ক্রাইম ডায়রি//জাতীয়//রাজনীতি   ///সূত্র : বাসস

Total Page Visits: 29895

ঝালকাঠিতে মিডিয়া ফোরামের আত্মপ্রকাশ

 ইমাম বিমান, ঝালকাঠি থেকেঃ
ঝালকাঠিতে বিজয় দিবসে শহীদ বেদীতে পুস্পার্ঘ অর্পন করে মুক্তিযুদ্ধে শহীদের প্রতি শ্রদ্ধা জানানোর মধ্য দিয়ে একঝাঁক তরুন সাংবাদিকদের নিয়ে মুক্তমনের সাংবাদিকতা একই সাথে আর্তমানবতার সেবায় সকলকে নিয়োজিত করার লক্ষ নিয়ে সাংবাদিক সংগঠন মিডিয়া ফোরামের আত্মপ্রকাশ।
জাতীয় মহান বিজয় দিবসকে সামনে রেখে একঝাঁক তরুন সাংবাদিকদের নিয়ে মুক্তমনের সাংবাদিকতার মাধ্যমে নিজেদের আর্তমানবতার সেবায় নিয়োজিত করার সপথ নিয়ে পথ চলতে শুরু করেছে ঝালকাঠি মিডিয়া ফোরাম। আর তারই ধারাবাহিকতা বজায় রাখার জন্য সদস্যরা ১৬ ডিসেম্বর বিজয় দিবসের দিনে ভোর ৬টায় ঝালকাঠির শহীদ মুক্তিযোদ্ধাদের স্মরনে তাদের স্মৃতিস্তম্ভে পুষ্পস্তবক অর্পণের মধ্য সাংগঠনিক যাত্রা শুরু করেছে জেলার অন্যতম সাংবাদিক সংগঠন মিডিয়া ফোরাম। বিজয় দিবসে আত্মপ্রকাশের মাধ্যমে পথ চলতে শুরু করেছে ঝালকাঠি মিডিয়া ফোরাম।
সংগঠনটির আত্মপ্রকাশ উপলক্ষে শহীদবেদীতে পুস্পার্ঘ অর্পনের পর ঝালকাঠি ব্রাক মোড়স্থ সংগঠনের অস্থায়ী কার্যালয়ে বিজয় দিবস উপলক্ষে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। উক্ত আলোচনা সভায় সাংবাদিক মোঃ মনির হোসেনকে সভাপতি ও সাংবাদিক দেলোয়ার হোসেনকে সাধারণ সম্পাদক পদে নির্বাচিত করে ৯ সদস্য বিশিষ্ট একটি কমিটি গঠন করা হয়। এর মধ্যে অন্যান্য সদস্যরা হলেন সাংবাদিক মিজানুর রহমান, মোঃ ইমাম হোসেন  রিয়াজ মোর্শেদ, কৌশিক বড়াল, খাইরুল ইসলাম, সৈয়দ রুবেল,  শফিকুল ইসলাম।
নতুন সংগঠনটি সম্পর্কে সংগঠনটির নবনির্বাচিত সভাপতি সাংবাদিক মনির হোসেনের কাছে জানতে চাওয়া হলে তিনি জানান, সাংবাদিকদের সাধারনত জাতির বিবেক বলা হয়, তাই আমরা এই পেশায় থেকে সৎ ভাবে জীবন জাপনে অঙ্গীকারবদ্ধ, আমাদের ঝালকাঠি মিডিয়া ফোরাম সংগঠন একটি ব্যতিক্রমি সংগঠন কারন এটা সাংবাদিকদের সংগঠন হলেও এর সদস্যরা শুধু সংবাদ সংগ্রহ নয় তার পাশাপাশি এর সদস্যরা ঝালকাঠিতে দুস্থ, গরীব ও অসহায় মানুষের পাশে দাড়িয়ে যেকোন মাধ্যমে তাকে সহযোগীতা করা, সকলের সহযোগীতায় গরীব ছাত্র-ছাত্রীদের শিক্ষা উপকরন সংগ্রহ অথবা সংগঠনের মাধ্যমে পৌছে দেয়া সহ সামাজিক উন্নয়ন মূলক কাজকর্মে অংশ গ্রহন।
ক্রাইম ডায়রি// জেলা//স্পেশাল
Total Page Visits: 29895

রায়গঞ্জে ৩১ কোটি টাকা ব্যয়ে ফুলজোড় নদী তীর সংরক্ষণ কাজের শুভ উদ্বোধন

স.ম.আব্দুস সাত্তার,রায়গঞ্জ(সিরাজগঞ্জ) প্রতিনিধিঃ

সিরাজগঞ্জের রায়গঞ্জ পৌরসভার ৩১ কোটি টাকা ব্যয়ে “বাঙ্গালী-করতোয়া-ফুলজোড়-হুরাসাগর নদী সিস্টেম ড্রেজিং/পুনঃখননসহ তীর সংরক্ষণ” শীর্ষক রায়গঞ্জ পৌরসভার ধানগড়া ও সিমলা সাহাপাড়া নামক স্থানে ১.৩০০ কি.মি. নদী তীর সংরক্ষণ কাজের উদ্বোধন করা হয়েছে।

মঙ্গলবার সকাল ১১টায় রায়গঞ্জ পৌরসভার আয়োজনে পানি সম্পদ মন্ত্রণালয় পানি উন্নয়ন বোর্ড সিরাজগঞ্জ এর বাস্তবায়নে অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন রায়গঞ্জ পৌরসভার মেয়র মোঃ আব্দুল্লাহ আল পাঠান। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন রায়গঞ্জ তাড়াশের সাংসদ অধ্যাপক ডাঃ আব্দুল আজিজ।

রায়গঞ্জ পৌর আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মোঃ জুয়েল মাহমুদ এর সঞ্চালনায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন সিরাজগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মোঃ শফিকুল ইসলাম, রায়গঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল হাদি আলমাজি জিন্নাহ, সহ-সভাপতি মোঃ ছাইদুল ইসলাম চান, সাধারণ সম্পাদক খন্দকার শরিফ উল আলম শরিফ, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক সম্পাদক মোঃ আখছারুল আলম খোকন, উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-দপ্তর সম্পাদক গোলাম হাসনায়েন টিটো, পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ্ব বাবুল আকতার, উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক মোঃ আল আমিন সরকার প্রমুখ।

ক্রাইম ডায়রি//জেলা

Total Page Visits: 29895

গাইবান্ধার সাবেক এমপি লিটন হত্যা মামলার রায় ঘোষনাঃ সাবেক এমপি কাদেরসহ সাতজনের ফাঁসি

গাইবান্ধা অফিসঃ

অবশেষে বহুল আলোচিত গাইবান্ধা-১ (সুন্দরগঞ্জ) আসনের আওয়ামী লীগের সাবেক সংসদ সদস্য মঞ্জুরুল ইসলাম লিটন হত্যা মামলায় রায় ঘোষনা করেছেন আদালত। এ রায়ে সাবেক সংসদ সদস্য আবদুল কাদের খানসহ সাতজনের ফাঁসির আদেশ দেয়া হয়েছে । ২৮ নভেম্বর, ২০১৯  ইং বৃহস্পতিবার  দুপুর পৌনে ১২টার দিকে এ রায় দেন গাইবান্ধা জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক দিলীপ কুমার ভৌমিক।

যাদেরকে ফাঁসির দণ্ড দেয়া হয়েছে তারা হলেন- হত্যাকাণ্ডের মূল পরিকল্পনাকারী জাতীয় পার্টির সাবেক এমপি আবদুল কাদের খান, তার ভাতিজা মেহেদি, পিএস শামছুজ্জোহা, গাড়িচালক আব্দুল হান্নান, ডিস ব্যবস্যায়ী শাহিন, রানা ও চন্দন কুমার রায়। এদের মধ্যে চন্দন কুমার ভারতে পলাতক রয়েছেন। অন্য আসামীর মধ্যে হত্যাকাণ্ডের মূল পরিকল্পনাকারী কাঁদের খান, তার পিএস শামছুজ্জোহা, গাড়িচালক হান্নান, ভাতিজা মেহেদি, ডিস ব্যবস্যায়ী শাহীন ও রানা জেলা কারাগারে রয়েছেন।

২০১৬ সালের ৩১ ডিসেম্বর সন্ধ্যায় সুন্দরগঞ্জের বামনডাঙ্গার মাস্টারপাড়ার নিজ বাড়িতে দুর্বৃত্তদের গুলীতে নিহত হন গাইবান্ধা-১ আসনের তৎকালীন আওয়ামীলীগের  এমপি মঞ্জুরুল ইসলাম লিটন।
এমপি লিটন হত্যাকাণ্ডের পর দুটি মামলা করে পুলিশ। এর মধ্যে একটি অস্ত্র ও অপরটি হত্যা মামলা। অস্ত্র মামলায় একমাত্র আসামী ওই আসনের জাতীয় পার্টির সাবেক এমপি আবদুল কাদের খানকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেন আদালত।
পাশাপাশি হত্যা মামলার তদন্ত শেষে জাতীয় পার্টির সাবেক এমপি কাদের খানসহ আটজনের বিরদ্ধে ২০১৭ সালের ৩০ এপ্রিল আদালতে অভিযোগপত্র দেয় পুলিশ। বৃহস্পতিবার হত্যা মামলার রায়ে কাদের খানসহ সাতজনকে ফাঁসির আদেশ দেন বিচারক। মামলার আট নম্বর আসামী কসাই সুবল সম্প্রতি কারাগারে অসুস্থ অবস্থায় মারা যান।
২০১৮ সালের ৮ এপ্রিল প্রথম দফায় আলোচিত এ মামলার সাক্ষ্যগ্রহণ শুরু হয়। বাদী, নিহতের স্ত্রী ও তদন্ত কর্মকর্তাসহ ৫৯ সাক্ষীর সাক্ষ্যগ্রহণ করেছেন আদালত। গত ৩১ অক্টোবর মামলার সাক্ষ্যগ্রহণ শেষ হয়।
চলতি বছরের ১৮ ও ১৯ নভেম্বর যুক্তিতর্ক উপস্থাপন করেন রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী পিপি শফিকুল ইসলাম শফিক। ২০১৮ সালের ৭ ফেব্রুয়ারি অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেন আদালত। রাষ্ট্র ও আসামীপক্ষের আইনজীবীদের ১৮ মাস যুক্তিতর্ক উপস্থাপন করা হয়।  এরপর  মামলার রায় ঘোষণা করেন বিজ্ঞ আদালত।

ক্রাইম ডায়রি///আদালত

Total Page Visits: 29895

ঘুষসহ হাতে-নাতে আনসার ও ভিডিপি কর্মকর্তা গ্রেফতার

উত্তরাঞ্চলীয় অফিসঃ

দুর্নীতি দমন কমিশনের বগুড়া সমন্বিত জেলা কার্যালয়ের একটি বিশেষ টিম ২৭ অক্টোবর রবিবার  বগুড়া সদর উপজেলার আনসার ও ভিডিপি কর্মকর্তা আনিছুর রহমানকে নিজ দপ্তর হতে ২০ হাজার টাকা ঘুষসহ হাতে-নাতে গ্রেফতার করেছে। একই সময় অফিসে তার ব্যবহৃত ড্রয়ার হতে নগদ ২৫,২৫০ টাকা উদ্ধার করা হয়।

এটাকার উৎস সম্পর্কে তিনি সন্তোষজনক কোনো জবাব দিতে পারেননি। দুদক সজেকা বগুড়ার সহকারী পরিচালক মোঃ আামিনুল ইসলাম এ বিষয়ে দুদক সজেকা বগুড়ায় একটি মামলা দায়ের করেছন।

ক্রাইম ডায়রি//ক্রাইম//আইন শৃঙ্খলা/দুদক

Total Page Visits: 29895

লন্ডনে চার কোম্পানির মালিক নাজমুলঃঃ খোঁজ নিচ্ছে দুদক

আতিকুল্লাহ আরেফিন রাসেলঃঃ

বঙ্গকন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নিকট অপরাধী অপরাধীই। সেক্ষেত্রে, তার বাবার রেখে যাওয়া স্বপ্নের আওয়ামীলীগ যে সোনার বাংলা গড়ার স্বপ্ন দেখে সেই সোনার বাংলা গঠনে প্রধান অন্তরায় অপরাধ প্রবণতা।।তাই,  কোন অপরাধীই সাধারন সুযোগ গ্রহন করে সংশোধিত না হলে কোনভাবেই তারা ছাড় পাবেনা। এরই ধারাবাহিকতায় ধরা হচ্ছে অপরাধীদের হোতাদের।। দল নয়,অপরাধ করলেই সে শাস্তির আওতায় আসবে। দুদকের প্রতি তার কড়া নির্দেশনা।

সেক্ষেত্রে, দলীয় পরিচয় কোন কাজে লাগবে না। বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক সিদ্দিকী নাজমুল আলম দেশে ও বিদেশে কী পরিমাণ সম্পদের মালিক? তার সম্পদের উৎস কী? সে-সব বিষয়ে তথ্য সংগ্রহ করবে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

সোমবার (৩০ সেপ্টেম্বর) রাজধানীর সেগুনবাগিচায় দুদকের প্রধান কার্যালয়ে সাংবাদিকদের করা এক প্রশ্নের জবাবে এই তথ্য জানান সংস্থাটির সচিব মুহাম্মদ দিলোয়ার বখত।

‘লন্ডনে সাবেক ছাত্রলীগ নেতা নাজমুলের চার কোম্পানি!’ শিরোনামে রবিবার একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করে সংবাদমাধ্যমগুলো। এই প্রতিবেদনের সূত্র ধরেই কি তার সম্পদবিবরণী অনুসন্ধান করা হচ্ছে দুদক সচিবের কাছে সাংবাদিকরা জানতে চাইলে তিনি বলেন, নাজমুল আলমকে নিয়ে গণমাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদন চোখে পড়েছে। প্রতিবেদনের তথ্য যাচাই-বাছাই করে তথ্য সংগ্রহ করা হবে। আদৌ!  তা সঠিক উপায়ে করা হয়েছে না তার ভিতর গলদ আছে তা জাস্টিফাই না করা পর্যন্ত মন্তব্য করে ব্যক্তি ইমেজ খুন করা ঘৃনিত অপরাধ।

প্রসঙ্গত, সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, নাজমুল আলম যুক্তরাজ্যের লন্ডনে কোটি কোটি টাকা বিনিয়োগ করেছেন। অনুসন্ধানে পাওয়া তথ্য অনুযায়ী, ব্রিটিশ সরকারের কাছে নাজমুলের কোটি কোটি টাকার নিবন্ধিত বিনিয়োগ রয়েছে। তার নামে ব্রিটেনের কোম্পানি হাউজে আবাসন, গাড়ির অ্যাক্সিডেন্ট ক্লেইম ম্যানেজমেন্ট, পণ্যের পাইকারি বিক্রেতা, বিজ্ঞাপন, চাকরিদাতা প্রতিষ্ঠান, সেবা প্রতিষ্ঠানসহ বিভিন্ন ধরনের ৬টি কোম্পানির অস্তিত্ব পাওয়া গেছে। এর মধ্যে ২টি কোম্পানির পরিচালক পদে তার নাম নেই। বাকি ৪টি কোম্পানির মধ্যে একটির একক পরিচালক এবং ৩টি যৌথ পরিচালক হিসেবে রয়েছেন তিনি।

সবগুলো বিষয়ই যুক্তির কষ্টিপাথরে যাচাই করা হবে বলে দুদক সুত্রে জানা গেছে ।

ক্রাইম ডায়রি///ক্রাইম//জাতীয়

Total Page Visits: 29895

রাজধানীর পল্লবীতে র‍্যাব-৪ এর হাতে মাদক সম্রাজ্ঞী তানিয়া গ্রেফতার

আরিফুল ইসলাম কাইয়ুমঃঃ

মাদকের বিরুদ্ধে বরাবরই শক্ত অবস্থানেে বিশেষায়িত বাহিনী র‍্যাব। সারাদেশে গোয়েন্দা নেটওয়ার্ক এর মাধ্যমে গোপন রহস্য ভিত্তিতে   ধারাবাহিক অভিযান চালিয়ে মাদকের প্রবণতা কমিয়ে আনতে সাহসী ভুমিকা পালন করে চলেছে র‍্যাব।

এরই ধারাবাহিকতায় ইয়াবা এবং গাঁজাসহ মিরপুর এলাকার মাদক সম্রাজ্ঞী তানিয়া ইসলাম নুপুর (৩১) কে গ্রেফতার করেছে র‍্যাব-৪। র‍্যাব-৪  সুত্রে জানা গেছে,    ২৫  অক্টোবর ২০১৯ তারিখ ১৮.৩৫ ঘটিকার সময়ে গোপন সংবাদ পায়   র‍্যাব-৪।  এরপর র‍্যাব-৪ এর  সহকারী পুলিশ সুপার সাগর দিপা বিশ্বাস এর নেতৃত্বে পল্লবী থানাধীন এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে ৬০ পিস ইয়াবা এবং ২২০ গ্রাম গাঁজাসহ মাদক সম্রাজী তানিয়া ইসলাম নুপুর (৩১) কে রাজধানীর পল্লবী থানা এলাকা হতে গ্রেফতার করা হয়।

গ্রেফতারকৃত মাদকবাজ তানিয়া ইসলামের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে জানিয়েছে র‍্যাব-৪।

ক্রাইম ডায়রি//ক্রাইম//আইন শৃঙ্খলা

Total Page Visits: 29895

প্রত্যেক উপজেলায় দশজন দুষ্টলোক চিহ্নিত করে আইনের আওতায় আনা হবেঃ দুদক কমিশনার

আতিকুল্লাহ আরেফিন রাসেলঃ

দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) কমিশনার মোহাম্মদ মোজাম্মেল হক খান বুধবার (২৩ অক্টোবর) নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জের উপজেলা পরিষদ অডিটোরিয়ামে দুদকের গণশুনানি অনুষ্ঠানে বলেছেন, দুদক এখন আর দন্তহীন বাঘ নয়। দুদক এখন একটি শক্তিশালী স্বাধীন প্রতিষ্ঠান। দুদকের কামড় দেওয়ার প্রয়োজন হয় না। দুদকের আঁচড় লাগলেও অনেকে সহ্য করতে পারে না।

তিনি বলেন, দুদক ১০০ জনের বিরুদ্ধে মামলা করার প্রক্রিয়া শুরু করেছে। এই তালিকা আরও দীর্ঘ হবে, বৃদ্ধি পাবে। তিনি বলেন, বাংলাদেশে দুষ্ট লোকের সংখ্যা খুব বেশি নয়। ৪৯২টি উপজেলা রয়েছে। প্রতি উপজেলায় যদি ১০ জন করে দুষ্ট লোককে চিহ্নিত করে আইনের আওতায় আনা যায় তাহলে দেশ থেকে দুর্নীতি-অনিয়ম অনেকটা কমে যাবে।

কমিশনার বলেন, দুর্নীতি করে কেউ পার পাবে না। দুর্নীতি করলে তাকে আইনের আওতায় আনা হবে। অবৈধভাবে অর্জিত সম্পদও বাজেয়াপ্ত করা হবে।

 

তিনি বলেন, বর্তমানে প্রভাবশালীরা দুদকের জালে আটকা পড়ে আইনের আওতায় আছে। তাদের সাঙ্গ-পাঙ্গদের আইনের আওতায় আনা হবে। কেউ ছাড় পাবে না।নারায়ণগঞ্জের জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ জসিম উদ্দিনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন- সেক্টর কমান্ডার ফোরামের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি রূপগঞ্জের সাবেক সংসদ সদস্য মেজর জেনারেল (অব) কে এম শফিউল্লাহ, দুদকের ঢাকা বিভাগীয় কার্যালয়ের পরিচালক আকতার হোসেন, নারায়ণগঞ্জের পুলিশ সুপার মো. হারুন-অর-রশিদ ও রূপগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মমতাজ বেগম।পরে গণশুনানি অনুষ্ঠিত হয়। রূপগঞ্জ উপজেলা পোস্ট অফিস, পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি, স্বাস্থ্য বিভাগ, ভূমি অফিস, শিক্ষা অফিসসহ বিভিন্ন সরকারি দপ্তরের কর্মকর্তারা, নির্বাচিত জনপ্রতিনিধিরা দুদক কর্মকর্তাদের উপস্থিতিতে অভিযোগকারিদের মুখোমুখি হন। এ সময় বিভিন্ন অভিযোগকারী সরকারি কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে সেবা না পাওয়াসহ দুর্নীতি অনিয়মের নানা অভিযোগ করেন। এ সময় সংশ্লিষ্ট বিভাগের কর্মকর্তারা তাদের বিরুদ্ধে উত্থাপিত অনিয়ম ও দুর্নীতির ব্যাখ্যা প্রদান করেন।সরকারি কর্মকর্তা ও জনপ্রতিনিধিদের বিরুদ্ধে প্রায় ১১০টি অভিযোগ গণশুনানিতে উঠে আসে।

ক্রাইম ডায়রি//আইনশৃঙ্খলা

Total Page Visits: 29895

নিষিদ্ধ ঘোষিত সংগঠন আনসার আল ইসলাম এর ০৪ জন সদস্যকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-৪

আতিকুল্লাহ আরেফিন রাসেলঃ

সারাদেশে  র‌্যাবের ধারাবাহিক  অভিযানে রাজধানীর গাবতলী ও সাভারের আমিন বাজার এলাকা হতে নিষিদ্ধ ঘোষিত সংগঠন আনসার আল ইসলাম এর ০৪ জন সদস্যকে গ্রেফতার করা হয়েছে বলে জানা গেছে। সুত্রে জানা গেছে, গোপন তথ্যের ভিত্তিতে র‌্যাব-৪ এর আভিযানিক দল গতকাল ২০ অক্টোবর ২০১৯ তারিখ রাতে অভিযান পরিচলানা করে রাজধানীর গাবতলী ও সাভারের আমিন বাজার এলাকা হতে নিষিদ্ধ ঘোষিত সংগঠন আনসার আল ইসলাম এর নিম্নবর্নিত ০৪ জন সক্রিয় সদস্য গ্রেফতার করেঃ

(ক) মুফতি সাইফুল ইসলাম (৩৪), জেলা-মানিকগঞ্জ।
(খ) মোঃ সালিম মিয়া (৩০), জেলা-ব্রাহ্মনবাড়িয়া।
(গ) জুনায়েদ(৩৭), জেলা-মুন্সীগঞ্জ।
(ঘ) আহম্মেদ সোহায়েল (২১), জেলা-সুনামগঞ্জ।

গ্রেফতারকৃতদের    প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানা গেছে, তারা  নিষিদ্ধ ঘোষিত সংগঠন আনসার আল ইসলাম এর সক্রিয় সদস্য।  তাদের নিকট হতে আনসার আল ইসলাম এর বিভিন্ন ধরনের উগ্রবাদী সম্পর্কিত বই, ভিডিও, কবিতা, বয়ান, লিফলেটসহ মোবাইল, ল্যাপটপ ও চাপাতি উদ্ধার করা হয়।গ্রেফতারকৃত মুফতি সাইফুল ইসলাম (৩৪) কে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানায় যে, সে উত্তর বাড্ডায় একটি নৈশ মাদ্রাসায় শিক্ষকতা করে। ছাত্র জীবনে সে হরকাতুল জিহাদের সাথে যুক্ত ছিল। হরকাতুল জিহাদ নিষিদ্ধ ঘোষিত হলে তিনি তার সক্রিয়তা কমিয়ে দেয়, কিন্তু সবসময় সে সশস্ত্র জঙ্গীবাদ এ অংশ গ্রহনে আগ্রহী ছিল। অন্য দিকে তার প্রাক্তন ছাত্র সেলিমের সহায়তায় একজন সক্রিয় আনসার আল-ইসলাম এর সদস্যের সাথে পরিচিত হয়। ঐ ব্যক্তি তাকে আনসার আল-ইসলামের দাওয়াত দেয় এবং বিভিন্ন বই, লিফলেট ও ভিডিও সরবরাহ করে। এমনকি সংগঠনের প্রয়োজনে যোগাযোগ করার জন্য বিভিন্ন প্রটেক্টিভ সফটওয়্যার ও মোবাইল এ্যাপস সম্পর্কে হাতে কলমে শিক্ষা দেয়। সে শীর্ষ জঙ্গীদের মধ্যে একজন, তার ল্যাপটপ এবংমোবাইল থেকে বিভিন্ন উগ্রবাদি ডিজিটাল কন্টেন্ট পাওয়া গিয়েছে।

এছাড়া  গ্রেফতারকৃত মোঃ সালিম মিয়া (৩০) বর্তমানে হাজারীবাগে বসবাস করে। সে ২০০৪ সালে প্রথম ঢাকায় আসে। বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে চাকুরী শেষে বর্তমানে সে একটি লিফট কোম্পানীতে কালেকশনের কাজ করে। ২০১৩ সালে নৈশ মাদ্রাসায় পড়তে গিয়ে সাইফুল হুজুরের সাথে তার প্রথম পরিচয় হয়। সাইফুল হুজুর বিভিন্ন সময়ে উগ্রবাদের কথা বলে। পরবর্তীতে এক ব্যক্তির সাথে তার পরিচয় হয়। সে আনসার আল-ইসলামের একজন সক্রিয় সদস্য। সে আনসার আল-ইসলামের বিভিন্ন ভিডিও, বইপত্র, মোবাইল এ্যাপস সংগ্রহ করতো এবং সংগঠন পরিচালনা ও ব্যয় নির্বাহের জন্য প্রতি মাসে চাঁদা দিয়ে আসছে।

গ্রেফতারকৃত মোঃ জুনায়েদ হোসেন (৩৭) প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানায় যে, তার বাড়ী মুন্সিগঞ্জে হলেও বর্তমানে সে সাভার থানার অন্তর্গত হেমায়েতপুরে একটি মাদ্রাসার প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক এবং শিক্ষক। ২০১৪ সালে সে তার মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠা করে। ছাত্র জীবনে সে হরকাতুল জিহাদের সাথে যুক্ত ছিল। জুলাই ২০১৯ মাসে জনৈক মাহফুজের মাধ্যমে সাইফুল ও সোহায়েল সাথে তার পরিচয় হয়। সাইফুলের কাছ থেকে আনসার আল-ইসলামের সক্রিয়তা সম্পর্কে জানতে পেরে সে সাইফুলের সাথে নিয়মিত যোগাযোগ রাখতো এবং তার স্থাপিত মাদ্রাসায় সাইফুল, জনৈক মাহফুজের সাথে নিয়মিত মিটিং এর আয়োজন করে।

এছাড়াও  গ্রেফতারকৃত আহম্মেদ সোহায়েল (২১), সে একটি মাদ্রাসার মিসকাত জান্নাত শ্রেণীর একজন ছাত্র। সে মাহাদি নামক এক ব্যক্তির সাথে এ্যাপস্ এর মাধ্যমে আনসার আল ইসলাম দল সম্পর্কে প্রথম জানতে পারে এবং তাদের কাজে উদ্বুদ্ধ হয়ে এ দলে যোগদান করে। সে প্রায় ০৩ বৎসর যাবত এই সংগঠনের সাথে জড়িত রয়েছে। পরবর্তীতে সে আনসার আল ইসলাম শীর্ষ নেতার সাথে অনলাইন গ্রুপের মাধ্যমে পরিচিত হয় এবং নিয়মিত যোগাযোগ রক্ষা করে আসছিল। আসামীদের জিজ্ঞাসাবাদে আরো জানা যায়, তারা গনতান্ত্রিক শাসন ব্যবস্থার বিপক্ষে, তাদের মতে এই ব্যবস্থা তাগোদি বা বাতিল, তারা ইসলামি শাসন ব্যবস্থা কায়েম করতে চায়। ইসলামি খেলাফত প্রতিষ্ঠায় যারা প্রতিহত বা বিরোধ সৃষ্টি করে তাদের চূড়ান্ত শাস্তির ব্যবস্থা করা। দেশের প্রচলিত শাসন ব্যবস্থার পরিবর্তে ইসলামী খেলাফত প্রতিষ্ঠা করাই আনসার আল ইসলামের মূল উদ্দেশ্য। তাদের উদ্দেশ্য ও লক্ষ্য বাস্তবায়নে প্রতিবন্ধকতা কারীদের উপর তারা আকশ্মিক আক্রমন করে কঠোর শাস্তি বা টার্গেট কিলিং করে থাকে। টার্গেট কিলিং এর ক্ষেত্রে অধিকাংশ সময় আগ্নেয়াস্ত্রের পরিবর্তে চাপাতি ব্যবহার করে। জঙ্গী তৎপড়তা, প্রশিক্ষণ ও করনীয় সম্পর্কে তারা নিজেদের মধ্যে অনলাইনে Protective Apps, Protective Text, Protective Browser এর মাধ্যমে যোগাযোগ করে। নিয়মিত ভাবে তাদের সদস্যদের কাছ থেকে মেহেনতের মাধ্যমে ইয়ানত সংগ্রহ করে। তারা নির্ধারিত ফর্মেটে সাপ্তাহিক প্রতিবেদন ও অগ্রগতি আমির এর নিকট দাখিল করে। যেমন-কয়জন নতুন সদস্যকে বয়ান দেওয়া হয়েছে, কোন ফান্ড বা চাঁদা সংগ্রহ করা হয়েছে কিনা ইত্যাদি। এই দলের সদস্যরা এন্ড্রয়েট মোবাইল বা ল্যাপটপ এর মাধ্যমে বিভিন্ন প্রটেক্টিভ এ্যাপস্, ম্যাসেঞ্জার ও ব্রাউজার ইত্যাদি ব্যবহার করে বিভিন্ন গ্রুপ তৈরি করে উগ্রবাদী সংবাদ, বই, উগ্রাবাদী ব্লগ, উগ্রবাদ উৎসাহ মূলক ভিডিও আপলোড ও শেয়ার করে নিয়মিত নিজেদের মধ্যে যোগাযোগ রক্ষা করে আসছিল। তার কাট-আউট মেথড অবলম্বন করে বিধায় এদের সনাক্ত করা কঠিন এবং সহজে কেউ কারো সাথে দেখা সাক্ষাৎ করে না, ফলে কেউ কাউকে চিনেনা। তবে কোন নাশকতার পরিকল্পনা, প্রশিক্ষন, গোপনীয় তথ্য সরাবারহ ও গুরুত্বপূর্ন সিদ্ধান্ত গ্রহনের ক্ষেত্রে কদাচিৎ দেখা সাক্ষাৎ করে থাকে। শিঘ্রই কোন নাশকতার পরিকল্পনা জন্য গ্রেফতারকৃত আসামীরা সাভারের আমিন বাজার এলাকায় তাদের পূর্ব নির্ধারিত স্থানে মিলিত হওয়ার চেষ্টা করছিল। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে এই তথ্য জানতে পেরে গতকাল রাত্রে তাদেরকে গাবতলী ও আমিনবাজার হতেগ্রেফতার করে নাশকতার পরিকল্পনা নশ্মাত করা হয়। এ সময় তাদের দলের আরো বেশ কয়েকজন পালিয়ে যায়। পলাতক জঙ্গীদের সমন্ধে তথ্য সংগ্রহ পূর্বক গেফতারের প্রক্রিয়া চলামান রয়েছে।গ্রেফতারকৃতদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন।

ক্রাইম ডায়রি//ক্রাইম//আইন শৃঙ্খলা

Total Page Visits: 29895

ঘুষ গ্রহণকালে দুদকের হাতে গ্রেফতার

আতিকুল্লাহ আরেফিন রাসেলঃঃ

ঘুষ গ্রহণকালে দুদকের হাতে গ্রেফতারের ঘটনা ঘটেছে। দুদক সুত্রে জানা গেছে,১৫ হাজার টাকা ঘুষ গ্রহণকালে টাঙ্গাইলের সহকারী রাজস্ব কর্মকর্তাকে আজ হাতেনাতে গ্রেফতার করেছে দুদক। গ্রেফতারকৃত আসামির নাম  আব্দুল্লাহ আল মারুফ ফেরদৌস, সহকারী রাজস্ব কর্মকর্তা, কাস্টমস, এক্সাইজ, ভ্যাট বিভাগ, টাঙ্গাইল।

জানা গেছে,  প্রকৃত ভ্যাটের চেয়ে কম ভ্যাট আদায় ও ১৩ ডিজিটের নতুন ভ্যাট রেজিস্ট্রেশন করে দেওয়ার জন্য জনৈক ব্যবসায়ীর নিকট থেকে অবৈধভাবে ১৫,০০০/-(পনেরো হাজার) টাকা নগদ ঘুষ গ্রহণ কালে তার নিজ দপ্তরে হাতে-নাতে গ্রেফতার। এ জন্য দন্ডবিধি’র ১৬১ ধারায় এবং সরকারি কর্মচারী হিসেবে ক্ষমতার অপব্যবহার, অপরাধজনক বিশ্বাসভঙ্গ ও অসদাচরণের দায়ে ১৯৪৭ সনের দুর্নীতি প্রতিরোধ ০২নং আইনের ৫(২) ত ধারায় ০১(একটি) মামলাটি দায়ের করা হয়েছে।

ক্রাইম ডায়রি//ক্রাইম//আদালত

Total Page Visits: 29895