• রবিবার ( রাত ৩:০৫ )
    • ১৮ই জানুয়ারি, ২০২০ ইং

বগুড়ার শেরপুরে তিন দিনব্যাপী বস্ত্র কুঠির শিল্প পণ্যমেলার উদ্বোধন

এরশাদ হোসেন, জেলা প্রতিনিধি ও শাহাদাত হোসেন, ভ্রাম্যমাণ প্রতিনিধিঃ

বগুড়া জেলা প্রতিনিধিঃ বগুড়ার শেরপুরে উপজেলা পরিষদ চত্বরে মহিলা শিশু বিষায়ক মন্ত্রণালয় ও এসাসিয়েশন ফর এন্ড রাইটস এন্ড পিচ (এ আরপি) উদ্যোগে উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে উপজেলা পর্যায়ে তৃণমূল নারী উদ্যোক্তাদের দক্ষতা উন্নয়ন প্রশিক্ষণ কর্মসূচির
উদ্যোগে ৩ দিনব্যাপী বস্ত্র ও কুঠির শিল্প পণ্য মেলা ২০২০ এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়েছে।

গত ১৮ জানুয়ারী ১১টায় শেরপুর উপজেলা পরিষদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান শাহ জামাল সিরাজীর
সভাপতিত্বে উক্ত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন শেরপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. লিয়াকত আলী সেখ, বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন উপজেলা ভ্যাটেরিনারী সার্জন ডা. মো.
রায়হান, উপজেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি সাপ্তাহিক আজকের শেরপুর পত্রিকার সম্পাদক মুন্সি সাইফুল বারী ডাবলু, উপজেলা মহিলা
বিষয়ক কর্মকর্তা সুবির পাল,সাপ্তাহিক তথ্যমালার সম্পাদক সুজিত বসাক, আর উপস্থিত ছিলেন জাতীয় সাংবাদিক পরিষদ শেরপুর শাখার
সভাপতি আড়াঁল অনুসন্ধান নিউজ লইফ ২৪.কম সম্পাদক ও প্রকাশক এবং  দি ক্রাইম ডায়রির বগুড়া জেলা প্রতিনিধি দৈনিক মুক্তবার্তার ভ্রাম্যমান প্রতিনিধি সাংবাদিক এরশাদ হোসেন সহ-সভাপতি উৎপল মালাকার, উপজেলা প্রেস ক্লাবের সভাপতি সাংবাদক দীপক সরকার,সহ-সভাপতি নাহিদ হাসান রবিন শাকিল আহম্মেদ, বাদশা মেলায় অংশ
নেওয়া উদ্যেক্তরা হলেন মোছাঃ লাকী খাতুন মৌসুমী, বিলকিছ বেগম,জাহানারা,শামীমমা আক্তার,পারভীন আক্তার,হোসনে আরা বেগম,গ্রীন চিলি ফাষ্ট ফুড,নূরজাহান আক্তার,রংবেরং
বুটিকস,সাবিনা সুলতানা,হাপুনিয়া মহিলা উন্নয়ন সংস্থা মেলায় বিভিন্ন সংগঠন থেকে হস্ত্র ও বস্ত্র বিপনী তাদের পণ্যের পসার সাজিয়ে বসেছেন। মেলার প্রথম দিনে বাঙালির নিজস্ব ঐতিহ্য হস্ত্র
ও বস্ত্র শিল্পের পণ্য ক্রয়ের প্রতি ক্রেতাদের আগ্রহ লক্ষনীয়। শেষে প্রধান অতিথি বিশেষ অতিথি মেলায় কুটির শিল্প বিভিন্ন ষ্টল ঘুরে দেখেন।

ক্রাইম ডায়রি///জেলা//শিল্প

Total Page Visits: 29895

কমছে পিঁয়াজের দাম– সংসদে কৃষিমন্ত্রী ড.আব্দুর রাজ্জাক

বিশেষ প্রতিনিধিঃঃ

পিঁয়াজ নিয়ে বহু মাতামাতির পর এবার পিঁয়াজের দাম কমে পাবলিকের ক্রয় সীমার মধ্যে আসার একটা সম্ভবনা দেখা দিয়েছে।আশা করা যায়,  আগানী কিছু দিনের মধ্যে আবার আগের মতই পিৃয়াজ কিনতে পারবে জনগন। কৃষি মন্ত্রী ডক্টর  আব্দুর রাজ্জাক জানিয়েছেন শিগগিরই পেঁয়াজের দাম কমবে।  ভারত পেঁয়াজ রফতানির ব্যাপারে নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয়ায় পেঁয়াজের দাম কমবে। পেঁয়াজের কেজি ১১০ টাকা থাকবে না বলেও মন্তব্য করেছেন তিনি। তবে দাম কমে কত হবে জানাতে পারেননি তিনি।

২০২০ সালের জানুয়ারীর ১৬ তারিখ রোজ বৃহস্পতিবার বিকেলে একাদশ জাতীয় সংসদের ৬ষ্ঠ অধিবেশনে মন্ত্রীদের জন্য নির্ধারিত প্রশ্নোত্তর পর্বে জাসদ একাংশের সাধারণ সম্পাদক ও সংসদ সদস্য শিরিন আখতারের সম্পূরক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী সংসদকে একথা বলেন।

কৃষিমন্ত্রী বলেন, এখন পেঁয়াজের মৌসুম। পার্শ্ববর্তী দেশ ভারত থেকে পেঁয়াজ আসছে এবং অন্যান্য দেশ থেকেও এসময় পেঁয়াজ আসবে। কোনওক্রমেই পেঁয়াজের দাম ১১০ টাকা কেজি থাকবে না। এটা অবশ্যই কমে আসবে। আমরা পেঁয়াজের ওপর যথেষ্ট গবেষণা করেছি এবং বিজ্ঞানীরা অনেক উন্নতমানের জাত আবিষ্কার করেছে এবং এখন হেক্টরে ২০, ২৫, ৩০ টন পর্যন্ত পেঁয়াজ উৎপাদন করা সম্ভব। কথা প্রসঙ্গে নিত্য কিছু পন্য যার ব্যবহার বহুল কিন্তু আলোচনা কম এমন দ্রব্য এলাচির দাম প্রসঙ্গে মন্ত্রী বলেন, মসলা নিয়ে অনেক গবেষণা করেছি। বগুড়াতে একটা গবেষণা কেন্দ্র স্থাপন করা হয়েছে। বিজ্ঞানীরা কাজ করছে। প্রকৃতির কারণে সব মসলা বাংলাদেশে হয় না। অনেক মসলা বিদেশ থেকে আমদানি করতে হয়। যেগুলো আমাদের দেশে হয় সেগুলো তো উৎপাদন করছি এবং সরকার এই জাতীয় মসলা যারা আবাদ করবে তাদের ৪ শতাংশ হারে সুদ দিয়ে কৃষককে প্রণোদনা দেয় বা ঋণ দেয়। কৃষকরা যদি মসলা, পেঁয়াজ উৎপাদন করে মাত্র ৪ শতাংশ সুদে ঋণ নিতে পারবেন।এলাচির দাম আন্তর্জাতিক বাজারেই বেশি বলে তিনি উল্লেখ করেন। তাছাড়া সবজির দাম এবার তুলনামূলকভাবে বেশি।

এ নিয়ে উভয় সঙ্কটের কথা তুলে ধরে বলেন, একদিকে সবজি আবাদ করতে যে খরচ হয়, সে অনুযায়ী কৃষকরা তাদের ফসলের ন্যায্য দাম পাচ্ছে না। আবার যেটা অস্বাভাবিক সেটাও গ্রহণযোগ্য না। আমরা এমন একটা জায়গায় আছি আমাদের জন্য উভয় সঙ্কট। দাম বেশি হলেও নিম্ন আয়ের মানুষ তাদের জন্য অনেক কষ্ট হয় আবার একদম কমে গেলে চাষিরা ফসল বিক্রি করে তার সংসার অন্যান্য খরচ চালাতে পারে না। দামটা অবশ্যই সহনশীল পর্যায়ে থাকতে হবে। তবে মানতে হবে সবজি এবং বিভিন্ন পরিবহনে খরচ অত্যাধিক।

সাংসদ আয়েন উদ্দিনের অপর এক সম্পূরক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, পেঁয়াজ নিয়ে মানুষের মধ্যে কিছুটা ক্ষোভ ও আতঙ্ক সৃষ্টি হয়েছিল। বর্তমানে দাম কিছুটা বৃদ্ধি থাকলেও স্থিতিশীল রয়েছে। যদি প্রাকৃতিক দুর্যোগ না হয়, তবে আগামীতে পেঁয়াজ নিয়ে কোনও সঙ্কট সৃষ্টি হবে না। যদি আমদানি করতেই হয়, তবে আগে থেকেই আমদানির ব্যবস্থা করা হবে। কৃষকরা যাতে পেঁয়াজ উৎপাদন করে ন্যায্যমূল্য পায় তার জন্য স্থানীয়ভাবে পেঁয়াজ সংরক্ষণের নানা ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে।

তিনি জানান, দেশে ২৩ থেকে ২৪ লাখ মেট্রিক টন পেঁয়াজ উৎপাদন হয়, কিন্তু চাহিদা রয়েছে ৩০ থেকে ৩২ লাখ মেট্রিক টন। অবশিষ্ট চাহিদা পূরণে পেঁয়াজ আমদানি করা হয়।

গত মৌসুমে অধিক বৃষ্টিপাতের কারণে জমিতেই পেঁয়াজ নষ্ট হয়ে যায়, ফলে অধিক ঘাটতির সৃষ্টি হয়। পার্শ্ববর্তী দেশ ভারত হঠাৎ করে পেঁয়াজ রফতানির ওপর নিষেধাজ্ঞা জারির কারণে দেশে হু হু করে পেঁয়াজের দাম বৃদ্ধি পায়, আমরা বাজারে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ফেলি। সরকার দ্রুত চীন, মিসরসহ কয়েকটি দেশ থেকে পেঁয়াজ আমদানি করে বাজার নিয়ন্ত্রণে আনার চেষ্টা করে।

কৃষিমন্ত্রী আরও জানান, পেঁয়াজের বিষয়টি সরকার এবার গুরুত্ব সহকারে নিয়েছে। মাঠ পর্যায়ে নানা প্রণোদনা প্রদানের কারণে অতীতের তুলনায় এবার অধিকহারে পেঁয়াজ উৎপাদন হবে। এক্ষেত্রে আমরা আমদানি বন্ধ করে দেশে পেঁয়াজ উৎপাদনকারী কৃষকরা যাতে ন্যায্যমূল্যে পায় সে ব্যবস্থা করবো। কারণ পেঁয়াজ পচনশীল। ভরা মৌসুমে কৃষকরা পেঁয়াজ খুব অল্পমূল্যে বিক্রি করতে বাধ্য হয়। এতে পেঁয়াজ উৎপাদনে তারা উৎসাহ হারিয়ে ফেলে। আগামীতে এটা যেন না হয় সে ব্যাপারে নানা পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছে। পিঁয়াজ নিয়ে যে অনাকাংখিত পরিবেশের সৃষ্টি হয়েছিল তা সত্যিই অনভিপ্রেত।  তবে এ ঘটনা হতে যথেষ্ট শিক্ষা গ্রহন করা হয়েছে।  সকল আবাদী জমিকে কাজে লাগিয়ে নিজস্ব ভাবে কৃষি পন্য উৎপাদন করে নিজস্ব পন্য ভান্ডার বৃদ্ধি করতে পারলে এ ধরনের পরিস্থিতির মুখোমুখি কখনও হতে হবেনা বলে বিশেষজ্ঞগন মনে করেন।

ক্রাইম ডায়রি/// জাতীয়//কৃষি

Total Page Visits: 29895

ঝিনাইদহে বেকারিতে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের জরিমানা

জাহিদুর রহমান তারিক, ঝিনাইদহঃ


ঝিনাইদহে পচা বাসি খাবার রাখার অপরাধে দুটি বেকারিতে জরিমানা করেছে ভোক্তা
অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর। বুধবার দুপুরে শহরের আলিফ ও রিমা বেকারিতে এ অভিযান
পরিচালনা করা হয়। ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের সহকারি পরিচালক সুচন্দন মন্ডল
জানান, শহরের গীতাঞ্জলী সড়কের পুরাতন ছবি ঘর সংলগ্ন আলিফ ও রিমা বেকারিতে
দীর্ঘদিন ধরে পচা বাসি খাবার তৈরি করে বিক্রি করা হচ্ছে।

এমন সংবাদের ভিত্তিতে
সেখানে অভিযান চালিয়ে রিমা বেকারিকে ২০ হাজার ও আলিফ বেকারিকে ১০ হাজার
টাকা জরিমান করা হয়। সেসময় সিপিসি ২ ও র‌্যাব-৬ এর সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

ক্রাইম ডায়রি///ক্রাইম//আদালত

Total Page Visits: 29895

বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে আকস্মিক মৃত আবরারের মামলায় দেশবরেন্য পত্রিকার সম্পাদককে গ্রেফতারী পরোয়ানা

অনলাইন ডেস্কঃ

মনে আছে সেই ছেলেটির কথা। বহুল আলোচিত সেই কিশোর আবরার দেশের খ্যাতি সম্পন্ন ও অন্যতম জাতীয় দৈনিক প্রথম আলো পত্রিকার কিশোর আলোর অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করে।  পরবর্তীতে অনাকাঙ্ক্ষিত ও অনভিপ্রেত দূর্ঘটনার শিকার হয়ে বিদ্যুৎ স্পৃষ্ট হয়ে মৃত্যুবরন করে। যাতে হতবিহবল হয়ে পড়ে প্রথম আলো পরিবার।  ঘটনা সুত্রে প্রকাশ,   কিশোর সাময়িকী ‘কিশোর আলোর’ বর্ষপূর্তি অনুষ্ঠানে বিদ্যুতায়িত হয়ে নাইমুল আবরার নামে এক শিক্ষার্থীর মৃত্যুর ঘটনায় প্রথম আলো সম্পাদক মতিউর রহমান, কিশোর আলো সম্পাদক আনিসুল হকসহ ১০ জনের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেছেন আদালত। ১৬ জানুয়ারী, ২০২০ইং তারিখ, বৃহস্পতিবার ঢাকার চতুর্থ অতিরিক্ত মুখ্য মহানগর হাকিম কায়সারুল ইসলাম এ-সংক্রান্তে দাখিল হওয়া পুলিশ প্রতিবেদন আমলে নিয়ে এ পরোয়ানা জারি করেছেন। এতে যাদের বিরুদ্ধে পরোয়ানা জারি করা হয়েছে তারা হলেন,  প্রথম আলোর সহযোগী সম্পাদক আনিসুল হক, হেড অব ইভেন্ট অ্যান্ড অ্যাক্টিভিশন কবির বকুল, নির্বাহী শুভাশীষ প্রামাণিক শুভ, কিশোর আলোর জ্যেষ্ঠ সহসম্পাদক মহিতুল আলম পাভেল, নির্বাহী শাহপরান তুষার, ডেকোরেশন ও জেনারেটর সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠানের জসিম উদ্দিন অপু, মোশারফ হোসেন, সুজন ও কামরুল হাওলাদার প্রমূখ।

উল্লেখ্য যে,  ২০১৯ সালের ৬ নভেম্বর নিহত নাইমুল আবরারের পিতা মো. মজিবুর রহমান একই আদালতে অবহেলাজনিত মৃত্যুর অভিযোগে দণ্ডবিধির ৩০৪ (ক) ধারায় এ মামলা করেন, যার সর্বোচ্চ সাজা পাঁচ বছরের কারাদণ্ড।

মামলাটি  দীর্ঘ  তদন্ত করে  মোহাম্মদপুর থানার পরিদর্শক আব্দুল আলীম।  পরে তিনি আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগের বিষয়ে সত্যতা পাওয়া গেছে  বলে জানান এবং এই  মর্মে প্রতিবেদন দাখিল করেন। ওই প্রতিবেদন বৃহস্পতিবার আদালত আমলে নিয়ে পরোয়ানা জারি করেন।
মামলাটির অভিযোগে বলা হয়েছে যে, বাদীর ছেলে নাইমুল আবরার (১৫) গত ১ নভেম্বর,২০১৯ইং ঢাকা রেসিডেন্সিয়াল মডেল স্কুল অ্যান্ড কলেজ মাঠে কিশোরদের মাসিক সাময়িকী কিশোর আলোর বর্ষপূর্তির অনুষ্ঠানে যায়। সে ওই প্রতিষ্ঠানেরই নবম শ্রেণীর শিক্ষার্থী। অনুষ্ঠান চলাকালে বেলা সাড়ে ৩টার দিকে আবরার বিদ্যুত্স্পৃষ্ট হয়ে অজ্ঞান হয়ে পড়ে। অনুষ্ঠানের জন্য যে বিদ্যুৎ সংযোগ স্থাপন করা হয় তা অরক্ষিত ছিল। এরূপ অনুষ্ঠান পরিচালনার জন্য বৈদ্যুতিক ব্যবস্থার যে নিরাপত্তামূলক ও সাবধানতার ব্যবস্থা গ্রহণ করার প্রয়োজন ছিল তা করা হয়নি। তাছাড়া  স্পটের খুব কাছেই সোহরাওয়ার্দী হাসপাতাল থাকলেও আবরারকে দূরবর্তী ‘মহাখালী ইউনিভার্সেল মেডিকেল কলেজ অ্যান্ড হাসপাতালে’ নিয়ে যাওয়া হয়। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের গত ১ নভেম্বর ইস্যুকৃত মৃত্যু সনদে দেখা যায়, নিহত আবরার ওই তারিখে বিকাল ৪টা ১৫ মিনিটে ভর্তি হয় এবং কর্তব্যরত চিকিৎসক ৪টা ৫১ মিনিটে তাকে মৃত ঘোষণা করেন। যেখানে আবরার বেলা সাড়ে ৩টায় বিদ্যুত্স্পৃষ্ট হয়। আর মৃত্যু সংবাদ জানার পরও মৃত্যুর সংবাদ গোপন রেখে সন্ধ্যা ৭টা পর্যন্ত অনুষ্ঠান চালিয়ে যায়। যা অমানবিক এবং হৃদয়বিদারক   চরম ধৃষ্টতার শামিল।

অনুষ্ঠান শেষ হওয়ার পর আবরারের পরিবারকে ৭টার পর সহপাঠীর মাধ্যমে মৃত্যু সংবাদ জানানো হয়েছে দাবি করে অভিযোগপত্রে এটাকে ‘পরিকল্পিত অবহেলাজনিত’ বলে উল্লেখ করা হয়েছে। আরো অভিযোগ করা হয়েছে, পরে বাদী ও তার পরিবার হাসপাতালে এলে মৃত্যুকে দুর্ঘটনা হিসেবে মেনে নিতে চাপ প্রয়োগ করা হয়। এরপর বাদী দ্রুত মরদেহ চাইলে মুচলেকা রেখে ময়নাতদন্ত ছাড়াই মরদেহ হস্তান্তর করা হয়। ফলে ময়নাতদন্ত ছাড়াই মরদেহ দাফন হয়। পরবর্তী সময়ে নাইমুল আবরারের মৃত্যুর প্রকৃত ঘটনা দৃশ্যমান হতে থাকে। অনুষ্ঠানের ব্যবস্থাপনা ও চিকিৎসায় অবহেলার বিষয়ে শিক্ষার্থীরা গত ২ নভেম্বর ক্যাম্পাসে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ করে।
আরো বলা হয়, বাদীর দৃঢ় বিশ্বাস নাইমুল আবরারের মৃত্যু অপমৃত্যু নয়। বরং আসামিদের চরম অবহেলা, অব্যবস্থাপনা, চিকিৎসায় অবহেলা, অযত্ন, অমনোযোগী, গাফিলতি ও অসাবধানতার কারণে ঘটেছে, যা বাংলাদেশ দণ্ডবিধির ৩০৪-এ ধারার অপরাধ বলে উল্লেখ  হয়েছেে। তবেে বিশেষজ্ঞরা বলছেন প্রেক্ষাপটে বোঝা ঘটনা অনভিপ্রেত ও আকস্মিক। ঐ সময়ে উপস্থিত অনেকেই অবশ্য আকস্মিক  ঘটনায় হতবিহবল হয়ে

পড়েছিলেন।পরে মৃত্যুর সংবাদ শুনে তারা সত্যই বেদনাহত হয়ে পড়েছিলেন বলে জানান।

ক্রাইম ডায়রি///ক্রাইম///আদালত

Total Page Visits: 29895

চাঁদাবাজ কোন দলের নয়ঃ ঝালকাঠিতে চাঁদাবাজির কারনে সাবেক নেতা অস্ত্র ও সঙ্গীসহ গ্রেফতার

ইমাম বিমান, ঝালকাঠি থেকে  :
বঙ্গকন্যা ও লৌহমানবী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সততার নীতির কাছে কোন অপরাধীর ছাড় নেই। সে যেই হোক।  অপরাধী কোন দলের নয়, আর আওয়ামীলীগ ও এর কোন অনুমোদিত অঙ্গ সংগঠনের কথা বলে চাঁদাবাজি কিংবা ধান্দাবাজির কোন সুযোগ নেই। বড় বড় বাঘা ব্যাক্তিরা যেখানে অন্যায় করে সুযোগ পাননি সেখানে অন্যায়কারী যে কারো অবস্থা কি হতে পারে তা অনুমেয়। এরই ধারাবাহিকতায় ও জনগনের অভিযোগের   প্রেক্ষিতে ঝালকাঠিতে চাঁদাবাজি মামলায় জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি হাদিসুর রহমান মিলন সহ ৬ জনকে গ্রেফতার সহ বিপুল পরিমান অস্ত্র উদ্ধার করেছে ঝালকাঠি সদর থানা পুলিশ।
এ বিষয় ঝালকাঠি সদর থানার ওসি মো. খলিলুর রহমান জানান, জেলা শহরের বিকনা এলাকার কামাল হোসেন হাওলাদার নামের এক ঠিকাদারের কাছে মাসিক ৫০ হাজার টাকা চাঁদার দাবী করে আসছে ছাত্রলীগ নেতা মিলন। চাঁদার বিষয় ঠিকাদার কামাল স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিদের জালানে মিলন ক্ষিপ্ত হয়ে তার লোকজন নিয়ে গত ৫ জানুয়ারি ঠিকাদার কামাল হোসেনকে মারধর করে। পরে কামাল হোসেন এ ঘটনায় মিলনসহ ৭ জনকে অভিযুক্ত করে সদর থানায় লিখিত অভিযোগ করে। কামালের লিখিত অভিযোগের প্রেক্ষিতে গত ১৪ জানুয়ারী (মঙ্গলবার) দিবাগত রাতে শহরের ডাক্তারপট্টি এলাকায় ছাত্রলীগ নেতা মিলনের বাসায় পুলিশ অভিযান করে মিলনসহ ৪ জনকে আটক করে। সেই সাথে গ্রেফতারের সময় সাবেক এ ছাত্রলীগ নেতার  বাসায় পুলিশ অভিযান চালিয়ে ১১টি দেশীয় ধারালো রামদা ও ৪টি পাইপ উদ্ধার করে। পরে শহরের বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে অপর ২জন আটক করে পুলিশ।
গ্রেফতারকৃতরা হলেন, জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি হাদিসুর রহমান মিলন, ঝালকাঠি সরকারি কলেজ ছাত্রলীগ সভাপতি তরিকুল ইসলাম অপু,  মামুন খান, সাইফুল ইসলাম, পলাশ দাস ও মামুনুর রশিদ ওরফে কঠিন মামুন চাঁদাবাজি মামলায় এবং পুলিশের দায়েরকৃত অস্ত্র মামলায় হাদিসুর রহমান মিলন, তরিকুল ইসলাম অপু,  মামুন খান ও সাইফুল ইসলামকে আসামী করা হয়েছে।
এছাড়াও মিলনের কাছে আরও অস্ত্র রয়েছে বলে পুলিশ ধারনা করছে। সদর থানার ওসি খলিলুর রহমান চাঁদাবাজির মামলায় অভিযুক্ত অপর আসামীকেও গ্রেফতারে অভিযান অব্যাহত আছে বলে ক্রাইম ডায়রিকে জানিয়েছেন।
Total Page Visits: 29895

দার্জিলিং ও শিলিগুড়িতে এখন থেকে সরাসরি যাওয়া যাবে

অনলাইন ডেস্কঃ

ভারতের বাংলা অংশ  পশ্চিমবঙ্গের দার্জিলিং এবং শিলিগুড়ির সঙ্গে সড়কপথে সরাসরি যোগাযোগ স্থাপনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে  বাংলাদেশ। আগামী বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ থেকে পশ্চিমবঙ্গের এ দুই পর্যটন এলাকায় সরাসরি বাস সেবা চালু হচ্ছে বলে জানিয়েছে  দ্য ইকোনমিক টাইমস, জাগোনিউজ ও আমাদের অর্থনীতি অনলাইন।  এ সুত্রগুলোতে  জানা গেছে, নতুন এই সিদ্ধান্ত অনুযায়ী সীমান্তে যাত্রীদের আর বাস পরিবর্তন করতে হবে না। বাংলাদেশ সরকারের সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের এক বৈঠকে আঞ্চলিক নেটওয়ার্ক সম্প্রসারণের লক্ষ্যে এই সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

জানা গেছে এর আগে, বাংলাদেশ, ভুটান, ভারত ও নেপালের (বিবিআইএন) আঞ্চলিক মোটরযান চুক্তি (এমভিএ) স্থগিত হয়ে যায়। বিবিআইএন-এমভিএ চুক্তি থেকে ভুটান সাময়িকভাবে বেরিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দেয়ার পর এই চুক্তি থমকে আছে।  দ্য ইকোনমিক টাইমস বলছে, ঢাকা-শিলিগুড়ি-গ্যাংটক (সিকিম)-ঢাকা এবং ঢাকা-শিলিগুড়ি-দার্জিলিং-ঢাকা রুটে পরীক্ষামূলক বাস চালুর পরিকল্পনা করেছে ঢাকা।

ক্রাইম ডায়রি///আন্তর্জাতিক//জাতীয়

 

Total Page Visits: 29895

পাবনায় নিরাপদ খাদ্য পরিদর্শকের অভিযানঃ এনার্জি ড্রিংকস কোম্পানিকে জড়িমানা

পাবনা সংবাদদাতাঃ

নিরাপদ খাদ্য অধিদপ্তরের সারাদেশে ধারাবাহিক অভিযানের অংশ হিসেবে পাবনায় অনুমতি ছাড়াই যৌণ উত্তেজক ড্রিংকস ” বীরপুরুষ ” তৈরির অভিযোগ পেয়ে   কারখানার অনুসন্ধান করে ডি এন সি আর পি পাবনা অফিস।  পরে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে কারখানায় অভিযান পরিচালনা করে তারা।

 

তারা বলে যৌন উত্তেজক রাসায়নিক দিয়ে তৈরি i-top ও Enjoy সিরাপ পান করলে নাকি পাবলিক বীর পুরুষে রুপান্তরিত হয়। পরীক্ষা করে দেখা গেছে, এতে    কিডনি বিকল করার অন্যতম উপাদান আছে। এমন অভিযোগে, পাবনা জেলার সদর উপজেলার কৃষ্ণপুর এলাকায় ইউনিটেক ফুড এন্ড বেভারেজ কোম্পানি কে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইন,২০০৯ অনুযায়ী জরিমানা আরোপ করা হয় এবং যৌন উত্তেজক পণ্য ধ্বংস করা হয়।
অদ্য অভিযানে সার্বিক সহযোগিতা করেন পাবনা জেলার নিরাপদ খাদ্য পরিদর্শক এবং জেলা পুলিশের একটি টিম। জনস্বার্থে অভিযান অব্যাহত থাকবে বল নিরাপদ খাদ্য অধিদপ্তরের পাবনা অফিস সুুুুত্রে জানা গেছে।

ক্রাইম ডায়রি//ক্রাইম//আদালত

Total Page Visits: 29895

বিশ্ব ইজতেমাঃ টঙ্গীর তুরাগ তীরে মানুষের ঢল

কালিমুল্লাহ দেওয়ান রাজা, বিশ্ব ইজতেমা হতেঃ

তিল ধারনের জায়গা নেই। হেঁটে যাবার পরিস্থিতিও নেই। লাখো মানুষের ভীরে মুখরিত তুরাগ তীর। উপচে পড়া মানুষ এখন আশুলিয়া রাস্তা হতে উত্তরার সেক্টর,টঙ্গী সবজায়গায় স্থান নিয়েছে।

দেশ-বিদেশের লাখো ধর্মপ্রাণ মুসলমানের কণ্ঠের আল্লাহ আকবর ধ্বনিতে মুখরিত ইজতেমা ময়দান।বয়ান-তাশকিল, তালিম, ইবাদত বন্দেগির মধ্য দিয়ে শনিবার কাটছে বিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয় দিন।

রোববার আখেরি মোনাজাতের মধ্য দিয়ে শেষ হবে মুসলিম বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম এ জমায়েতের প্রথম পর্ব।

আলেম ওলামদের নেতৃত্বে চলছে এই ইজতেমা। গতবারের ইজতেমায় যদিও রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের শিকার হয়ে পিছু হটেছিল এই গ্রুপ কিন্তু এবার এইদলেই সারা দিয়েছে বাংলার মুসলিম সমাজ। দ্বিতীয় পর্ব হবে মাওলানা সাদ পন্থীদের।

ময়দানের কোথাও ঠাঁই না পেয়ে মুসল্লিদের উপচেপড়া ভিড় আশপাশের এলাকায় ছড়িয়ে পড়ছে। কনকনে শীত উপেক্ষা করে মুসল্লিরা খোলা আকাশের নিচে রাস্তায় অবস্থান নিয়েছেন।

শনিবার ইজতেমার মাঠ ও আশপাশের এলাকা ঘুরে দেখা যায়, চারদিকে প্রচুর মানুষের সমাগম। অনেকে ইজতেমা ময়দানে জায়গা না পেয়ে বা দলছুট হয়ে ঘোরাঘুরি করছেন এদিক-সেদিক।

তাবলীগের ৬ উসূলের (মৌলিক বিষয়ে) উপর বাদ ফজর ভারতের মাওলানা আব্দুর রহমানের বয়ানের মধ্য দিয়ে দ্বিতীয় দিনের বয়ান শুরু হয়। এ বয়ান বাংলায় তরজমা করেন বাংলাদেশের মাওলানা আব্দুল মতিন। বাদ জোহর বয়ান করেন ভারতের মাওলানা ইসমাইল গোদরা। তার বয়ান ভাষান্তর করেন মাওলানা মো. নূর-উর-রহমান ।

বাদ আসর বয়ান করেন ভারতের মাওলানা জোহায়েরুল হাসান। বাদ মাগরিব বয়ান করেন ভারতের মাওলানা ইব্রাহীম দেওলা।

ইজতেমার নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা কর্মীরা জানিয়েছেন, অন্যবারের তুলনায় এবারের ইজতেমায় মুসল্লির সংখ্যা বেশি। ইজতেমা মাঠের পূর্ব ও পশ্চিম পাশে নতুন ১৪টি খিত্তা (নির্ধারিত স্থান) যুক্ত করার মাধ্যমে মাঠের পরিধি বাড়ানো হয়েছে।

আর পুরো ইজতেমাকে ৯১টি খিত্তায় ভাগ করা হয়েছে। এরপরও জায়গা না পাওয়ায় ময়দানের বাইরে রাস্তায় অবস্থান করছেন মুসল্লিরা।

ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়ক, আবদুল্লাহপুর-আশুলিয়া সড়ক, স্টেশনরোড-কামারপাড়া সড়কসহ ইজতেমার ময়দানে প্রবেশের রাস্তার দুই পাশে মুসল্লিরা অবস্থান নেয়ায় রাস্তাগুলো সঙ্কুচিত হয়ে গেছে। কোথাও কোথাও যানবাহন এমনকি হাঁটার পথও বন্ধ হয়ে গেছে। উত্তরা ১০ নং সেক্টরের বিভিন্ন রাস্তায়ও তাবু ফেলেছেন মুসল্লিরা।

এর মাঝেই চলছে বয়ান, জিকির-আজকার, কিতাবের তালিম, জামাতের জন্য তাশকিল, নফল ইবাদত-বন্দেগি, খাওয়া-দাওয়া ও আনুষঙ্গিক কাজ।

মুরব্বিদের বয়ান চলাকালে পুরো ইজতেমা ময়দান জুড়ে পিনপতন নীরবতা নেমে আসে। ঠান্ডা বাতাস ও কনকনে শীত উপেক্ষা করে মুসল্লিদেরকে অধিক মনযোগ সহকারে মুরব্বিদের মূল্যবান বয়ান শুনতে দেখা গেছে।

বাদ ফজর ভারতের মাওলানা আব্দুর রহমান ইমান, আমল, জাহান্নাম, জান্নাত ও দাওয়াতে মেহনতের উপর গুরুত্বপূর্ণ বয়ান রাখেন।

তিনি তার বয়ানে বলেন, আমাদের জানমাল দ্বীনের দাওয়াতের কাজে ব্যয় করতে হবে।

তিনি বলেন, ঘর তৈরি করতে গেলে যে পরিমান মেহনত করা প্রয়োজন, আমরা সে পরিমান মেহনত করলে একটি ঘর তৈরি হয়। ঠিক একইভাবে দাওয়াতের কাজে যে পরিমান মেহনত করা প্রয়োজন, সে পরিমান মেহনত করলে আল্লাহজাল্লাহ শানহু আমাদের দাওয়াতকে কবুল করবেন।

আর দাওয়াত কবুল হলে আমাদের দোয়া কবুল হবে। দোয়া কবুল হলে আমাদের জীবন পরিবর্তন হয়ে যাবে।

স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণ করে সারা দেশ থেকে স্রোতের মতো আসছে মানুষ।। আখেরী মোনাজাতের মধ্য দিয়ে শেষ হবে এ মিলন মেলা।

ক্রাইম ডায়রি//জাতীয়

Total Page Visits: 29895

রাজধানীতে নির্বাচন হবে সম্প্রীতির ও উন্নয়নের–ব্যারিষ্টার তাপস

আতিকুল্লাহ আরেফিন রাসেলঃ

ব্যারিষ্টার শেখ ফজলে নুর তাপস তার ব্যতিক্রমি উদ্যোগের জন্য বরাবরই বিখ্যাত।  ঢাকা ১০আসন হতে তিন তিনবার নির্বাচিত এই এমপি এবার জানালেন সম্প্রীতির নির্বাচনের কথা।। কোন দলাদলি কিংবা হিংসাহিংসি নয়।  জনগন ভোটাধিকার প্রয়োগ করবে সত্যিই ঢাকাকে পরিবর্তন করে বসবাসের উপযোগী করে দিবে এমন একজনকে।   ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন (ডিএসসিসি) নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত মেয়র প্রার্থী ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস আরও  বলেছেন, বিজয়ী হতে পারলে ঢাকা শহরকে মাদকমুক্ত করবো। এলাকাভিত্তিক সামাজিক সমস্যাগুলো সমাধান করবো।

১১ই জানুয়ারি ২০২০ইং তারিখ   শনিবার রাজধানীর ওয়ারীতে ঐতিহাসিক রোজ গার্ডেনে অনুষ্ঠিত নির্বাচনী প্রচারণা সভায় তিনি এ কথা বলেন। ঐতিহাসিক রোজ গার্ডেন থেকে নির্বাচনী প্রচারণা শুরু করেন তাপস। তিনি বলেন, ঢাকা আমাদের প্রাণের শহর। ঢাকাতেই আমাদের বেড়ে ওঠা এবং স্বপ্ন দেখা। তাই আমাদের এই ঐতিহ্যবাহী ঢাকাকে পুনরুজ্জীবিত করবো। আমরা ঢাকাকে উন্নত দেশের উন্নত রাজধানী হিসেবে গড়ে তুলবো।

তিনি বলেন, আমরা আমাদের ঢাকাকে সুন্দর ঢাকা হিসেবে গড়ে তুলবো। প্রত্যেকটা ওয়ার্ডে খেলাধুলার পর্যাপ্ত ব্যবস্থা করা হবে। আমাদের মা-বোন ও মুরুব্বিদের জন্য পর্যাপ্ত হাঁটার ব্যবস্থা করা হবে।

২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত দেশের উন্নত রাজধানী ও নাগরিক সেবা দ্বারে দ্বারে পৌঁছানোর প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়নের জন্য নৌকা মার্কার বিকল্প দেখছেন না তিনি। দ্বিতীয় দিন প্রচারণার সময় ক্ষমতাসীন দলের মেয়র প্রার্থীর সাথে ছিলেন, ওয়ারী থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি চৌধুরী আশিকুর রহমান লাভলু, ঢাকা মহানগর দক্ষিন যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক রেজাউল করীম, ৩৯ নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি, সাধারণ সম্পাদকসহ স্থানীয় নেতা-কর্মীরা উপস্থিত ছিলেন। দিনের শেষ ভাগে তার সাথে যুক্ত হন সাবেক এমপি মোস্তফা জালাল মহিউদ্দীনসহ নেতৃস্থানীয় নেতারা।

এসময় মেয়র পদ প্রার্থী তাপস রাজধানীর আর কে মিশন রোডস্থ গোপীবাগের সেকেন্ড লেনে ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে বিএনপি সমর্থিত মেয়র প্রার্থী ইশরাক হোসেনের বাসায় গিয়ে নৌকা প্রতীকে ভোট ও দোয়া চান।

তাপস বলেন, ঢাকা আমার প্রাণের শহর। এ শহরে আমার বেড়ে উঠ। আমি ঢাকার ঐতিহ্য পুনরুদ্ধার করতে চাই। ঢাকার ঐতিহ্যকে সারা বিশ্বের কাছে তুলে ধরবো, পরিস্ফুটিত করবো। দ্বিতীয়ত, আমাদের সুন্দর ঢাকা। ঢাকাকে আমরা বায়ু দূষণমুক্ত করবো। সৌন্দর্য বর্ধন করবো। ঢাকার প্রতিটি ওয়ার্ডে আমরা আমাদের সন্তানদের জন্য খেলার মাঠ ও পার্কের ব্যবস্থা করবো।

তিনি আরও বলেন, আমরা অচল ঢাকাকে সচল করতে চাই। ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনকে স্বায়ত্তশাসনের মাধ্যমে দুর্নীতিমুক্ত করবো। সুশাসিত ঢাকার আওতায় সকল নাগরিক তাদের মৌলিক সুবিধা দৌড়গোড়ায় পাবে। আমরা এলাকায় ভিত্তিক সমস্যার সমাধান করবো। আমরা ঢাকাকে উন্নত রাজধানীর হিসেবে গড়ে তুলবো।

সেই সাথে তিনি নির্বাচিত হলে প্রথম ৯০ দিনের মধ্যে সব নাগরিক সেবা নিশ্চিত করার প্রতিশ্রুতি ব্যক্ত করেছেন। এছাড়া যানজট নিরসন, বর্জ্য ব্যবস্থাপনা, পয়ঃনিষ্কাশনসহ আধুনিক ঢাকা ও নাগরিক সেবা নিশ্চিত করতে পাঁচটি বিশেষ লক্ষেরও কথা বলছেন ব্যারিস্টার তাপস।

শনিবার সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত নেতা-কর্মীদের সাথে নিয়ে বিভিন্ন পাড়া-মহল্লা, বাসা-বড়ি ও দোকানে ভোট চেয়েছেন তাপস। সেই সাথে দলের নেতা-কর্মীরা মিছিল ও করতালিতে দাপিয়ে বেড়াচ্ছে রাজধানীর বিভিন্ন অলি-গলি। সাউন্ড সিস্টেমে বাজানো হচ্ছে জয় জিতবে এবার নৌকা সহ নানা নির্বাচন’মুখী গান।

এর আগে শুক্রবার মানুষের দোরগোড়ায় সেবক হিসেবে নাগরিক সেবা পৌঁছে দেওয়ার বার্তা নিয়ে রাজধানীর ডেমরা থেকে নির্বাচনী প্রচার শুরু করেন তিনি। যেসব প্রতিশ্রুতি দিচ্ছেন তার মধ্যে ৩০ জানুয়ারি বিজয়কে সুনিশ্চিত করে প্রাণপ্রিয় ঢাকাকে ঐতিহ্যের ঢাকা, সুন্দর ঢাকা, সচল ঢাকা, সুশাসিত ঢাকা ও উন্নত ঢাকা গড়ার কথা বলছেন।

ব্যারিষ্টারের শেখ ফজলে নুর তাপস এই ব্যতিক্রমি কথা ও চেতনাকে স্বাগত জানিয়েছে সাধারন মানুষ ও বিরোধী দলগুলো।

গত ২২ডিসেম্বর নির্বাচন কমিশন ঢাকার দুই সিটি করপোরেশনের তফসিল ঘোষণা করে। তফসিল অনুযায়ী আগামী ৩০ জানুয়ারি এ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

ক্রাইম ডায়রি//জাতীয়

Total Page Visits: 29895

হাইওয়ে পুলিশের সাফল্যঃ গাইবান্ধায় শ্যামলী পরিবহন হতে মাদক উদ্ধার

গাইবান্ধা জেলা প্রতিনিধিঃঃ

ধারাবাহিক অভিযানের অংশ হিসেবে গাইবান্ধা জেলার  গোবিন্দগঞ্জ হাইওয়ে থানা পুলিশ শ্যামলী পরিবহন হতে একজন মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করেছে।  হাইওয়ে পুলিশের বরাত দিয়ে ক্রাইম ডায়রির নিজস্ব প্রতিনিধি জানিয়েছে, ০৯/০১/২০২০ তারিখ বেলা ১১.৩০ টার সময় গোপন সংবাদের ভিত্তিতে    গাইবান্ধা জেলার গোবিন্দগঞ্জ থানাধীন সাহেবগঞ্জ পুলিশ ফাঁড়ির  বাগদা ফার্ম এলাকায় দিনাজপুর-গোবিন্দগঞ্জ আঞ্চলিক মহাসড়কের উপর দিনাজপুর হইতে ঢাকা গামী শ্যামলী পরিবহনে অভিযান চালানো হলে একযাত্রী ও তার স্ত্রীর নিকট হতে মাজার বেল্টে বাঁধা ফেনসিডিল আটক করতে সক্ষম হয় হাইওয়ে পুলিশ।  শ্যমলী পরিবহনের গাড়িটির রেজিঃ নং-ঢাকা মেট্রো-ব-১৫-১৭৬৬। আটককৃত যাত্রী শ্রী দয়াল রায়(৩২), পিতা-শ্রী তারাপদ  এবং তার স্ত্রী শ্রীমতি স্বপ্না রায়(২৮), পিতা-মৃত সুভাষ। জানা গেছে,  এদের বাড়ি দিনাজপুর জেলার পার্বতীপুর থানার হাবড়া ইউনিয়নের উত্তর  মরনাই গ্রামে।

এ সময় তারাপদ ও তার স্ত্রীর নিকট হতে ৩৩+৩২ =৬৫(পয়ষট্টি) বোতল ফেন্সিডিল উদ্ধার করা হয়।  আটককৃতদের বিরুদ্ধে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে আইনগত ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে বলে এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত জানা গেছে।

ক্রাইম ডায়রি//ক্রাইম///জেলা/আইন শৃঙ্খলা

Total Page Visits: 29895